সুগন্ধা পয়েন্টে খাজা আজমীরি রেস্তোরায় ভাংচুর ও কর্মচারীদের মারধর করেছে সন্ত্রাসীরা

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শনিবার, জানুয়ারী ২৩, ২০২১
  • 363 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

কক্স৭১
কক্সবাজার হোটেল মোটেল জোনের সুগন্ধা পয়েন্ট সংলগ্ন খাজা আজমীরি রেস্তোরা ভাংচুর ও তালা মেরে নিয়ে রেস্তোরায় কর্মরত কর্মচারীদের মারধর করেছে সন্ত্রাসীরা এছাড়া সন্ত্রাসীদের হুমকিতে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারছেনা অসহায় দোকান মালিক। খাজা আজমীরি রেস্তোরার মালিক শ্যামল কারন বলেন,এটি সরকারি জায়গায় একটি মুদির দোকান ছিল তখনকার দখল মালিক মহেশখালী গোরকাঘাটার মৃত হাজী নুর আহামদের ছেলে মোঃ মফিজ উল্লাহর সাথে ২৪/৫/২০১৭ সালে ৩ লাখ টাকা সালামী এবং ৪ লাখ টাকায় দোকানের মালামাল কিনে নিয়ে ৩ বছরের চুক্তিতে আমি হোটেল ব্যবসা শুরু করি। এর মধ্যে করোনা পরিস্থিতি সহ নানান কারনে ব্যবসায় লোকসান নিয়ে সাতকানিয়া থেকে আমার পৈত্রিক বাড়িঘর বিক্রি করে টাকা এনে দিয়ে বর্তমানে আমি শূন্য। আমি বর্তমানে স্ট্রোক করে একপাশ অবস আমারা স্ত্রী চরম অসুস্থ এক কথায় খুবই খারাপ অবস্থা। বর্তমানে মেয়াদ শেষ হওয়ায় ১-১০-২০২০ সালে মফিজ উল্লাহ এবং তার ভগ্নিপতি বাহারছড়ার মকবুল আহামদের ছেলে নুরুল আলম দুইজনের সাথে আবার ৩ বছরের চুক্তিকরি যার মেয়াদ ৩০-৯-২০২২ পর্যন্ত বলবৎ আছে। এর মধ্যে বাহারছড়ার নুরুল আলমের ভাড়া করা কিছু সন্ত্রাসী ছেলে গত ১১ জানুয়ারী এসে আমাকে বলে এই দোকান তারা কিনেছে তাই দোকান ছেড়ে দিতে হবে,পরে ১৫ জানুয়ারী রাতে রাশেদ,ছাত্রলীগ নেতা রাহুল,সামি,জয়,ভুট্টু এসে আমার রেস্তোরা তালা মেরে দেয় আমার স্টাফদের মারধর করে তখন আমার ৯৯৯ এ কল করলে সদর থানা পুলিশ আসে এস আই দস্তগীরের সহযোগিতায় দোকানের তালা ভেঙ্গে ঢুকি। এর পরে হঠাৎ ২২ জানুয়ারী আবার সেই সন্ত্রাসী দল এসে রাত ১২ টার দিকে এসে দোকানে ব্যাপক ভাংচুর করে,ক্যাশ ভেঙ্গে টাকা নিয়ে যায় প্রতিবাদ করলে দোকানের কর্মচারীদের মারধর করে দোকান বন্ধ করে দেওয়ার হুমকি দেয়। রেস্তোরা মালিক শ্যামল বলেন,আমার এখানে কেউ নেই তার উপর সংখ্যালঘু এ জন্য তারা আমার উপর চরম নির্যাতন করছে আমি প্রশাসন সহ সর্বস্থরের মানুষের কাছে এর বিচার চাই।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT