শিরোনাম :
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চোরাই পণ্যের ব্যবসা জমজমাট কক্সবাজারের দুই পৌরসভা ও ১৪ ইউপিতে ভোট ২০ সেপ্টেম্বর রামু উপজেলা পরিষদের সৌন্দর্য্য নষ্ট করে দোকান বরাদ্ধের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ ঈদগাঁও বটতলী-ইসলামপুর বাজার সড়কের বেহাল দশা আইসক্রিম বিক্রেতা থেকে কোটিপতি রোহিঙ্গা জালাল : নেপথ্যে ইয়াবা ব্যবসা পৌর কাউন্সিলার জামশেদের স্ত্রী‘র ইন্তেকাল : সকাল ১০ টায় জানাযা উখিয়ায় বিদ্যুৎ পৃষ্টে একজনের মৃত্যু কক্সবাজারে বেড়াতে এসে অতিরিক্ত মদপানে চট্টগ্রাম ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু টেকনাফে নৌকা বিদ্রোহীদের জন্য কঠিন শাস্তি অপেক্ষা করছে; সাবরাং পথসভায় মেয়র মুজিব ৮ হাজার পিস ইয়াবা, যৌন উত্তেজক সিরাপ নগদ টাকা সহ আটক ১

সাহিত্য প্রেমীদের ভীড় বাড়ছে বই মেলায়

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, মার্চ ৩, ২০২১
  • 216 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

মাহাবুবুর রহমান.
বই মেলায় বেড়েছে সাহিত্য প্রেমীদের ভীড়। প্রতিদিন বিকাল থেকে রাত পর্যন্ত জেলার প্রত্যান্ত অঞ্চল থেকে বই প্রেমীরা আসছে কক্সবাজার পাবলিক লাইব্রেরী ও শহীদ দৌলত মাঠে। অনেকে আসছে স্বপরিবারে। মেলায় এসে বেশির ভাগই কিনছে বই। বিশেষ করে ছোট গল্প এবং শিশুদের বই কিনছে অনেকে। অন্যদিকে বই বিক্রি নিয়ে খুব বেশি হতাশ নয় বিক্রেতারা। এদিকে ৬ দিনের এবারের বই মেলা ৬ মার্চ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও আরো একদিন বাড়িয়ে ৭ মার্চ পর্যন্ত বই মেলা চলবে বলে জানান আয়োজন কর্তৃপক্ষ।
৩ মার্চ সন্ধ্যায় কক্সবাজার পাবলিক লাইব্রেরীর শহীদ দৌলত মাঠে গিয়ে বই মেলায় গিয়ে দেখা গেছে অনেকটা লোকারন্য মাঠ। বেশির ভাগ স্টলের সামনেই আছে দর্শক বা পাঠক এর মধ্যে নারীদের সংখ্যা চোখে পড়ার মত। এ সময় একটি স্টলে দেখা হয় কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাম মোহন সেনের সাথে বই মেলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন,একটা সময় ছিল বই মেলায় ছিল সর্বস্তরের মানুষের মিলনমেলার প্রধান কেন্দ্রবিন্দু কিন্তু বর্তমান বাস্তবতার কারনে আজ সেই পরিবেশ নেই। তবে বই মেলা হচ্ছে এমন একটি জিনিস সেখানে আসলে মনে হয় প্রাণ ফিরে পেয়েছি,বুক ভরে নিশ^াষ নিতে পারি। তিনি বলেন,সাগরের ঢেউ থেকে মুক্ত খুজে নেওয়া আর বাজার থেকে মুক্তার মালা কিনে নেওয়া এক না। তাই বর্তমান ইন্টারনেট যুগে মানুষের যে তথ্য প্রয়োজন তা অনলাইনে চার্জ করলেই পেয়ে যাচ্ছে সেটা হবে বাজার থেকে মুক্তা কেনার মত। তবে আসল মজা হচ্ছে সমস্ত বই পড়ে যে জ্ঞান অর্জন হবে সেটা অন্য কোথাও পাওয়া যাবে না। আর সেটাই স্থায়ী হয়। এ সময় কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের আরেক সিনিয়র শিক্ষক মোক্তার আহামদ বলেন,আমি যখনি বই মেলা হয় প্রায় প্রতিদিনেই বই মেলায় আসি,বই মেলায় আসতে খুবই ভাল লাগে। আর প্রতি বছরেই কিছুনা কিছু বই কিনি। তিনি জানান,আমাদের সময় বই পড়া ছাড়া বিকল্প কোন ভাবে জ্ঞান অর্জনের সুযোগ ছিল না তবে এখন প্রযুক্তির কারনে অনেক কিছু সহজেই পাচ্ছে বর্তমান প্রজন্ম তবুও বই পড়ার মাঝে যে আনন্দ সেটা অন্য কোথায় পাওয়া যাবে না। আমি সকল অভিবাবকদের আহবান জানাবো যে সন্তান নিয়মিত বই পড়বে সে সন্তান কখনো বিপদগামী হতে পারেনা তাই উপহার হিসাবে সন্তানদের বই উপহার দিন। কক্সবাজার বায়তুশ শরফ জব্বারিয়া একাডেমীর প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিম বলেন,বই মেলায় যে প্রাণের উচ্ছাস পাওয়া যায় সেটা অন্য কোথাও পাওয়া যায়না। এই অস্থির পৃথীবিতে প্রশান্তি আনার জন্য বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলার আহবান জানান একই সাথে বন্ধু বান্ধবের বিশেষ দিন বা সন্তানদের বিশেষ দিনে বই উপহার দিয়ে বই পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলার আহবান জানান একই সাথে ঘরের সুপিজে বিভিন্ন নামীদামী জিনিসের পাশে বই রাখার পরামর্শ দেন। এ ব্যাপারে বই মেলা আয়োজক কমিটির সদস্য সচিব এড,তাপস রক্ষিত জানান,এবারের বই মেলায় ৫০ টি স্টল বসেছে,এবার বেশ ভাল পাঠক এবং দর্শকের সমাগম ঘটছে এবং বইও বিক্রি হচ্ছে ভালই। এছাড়া বিভিন্ন উপজেলা সহ স্থানীয় সাংস্কৃতিক সংগঠনের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্টান হচ্ছে। এ সময় তিনি জানান,৬ মার্চ বই মেলার সমাপ্তি হওয়ার কথা থাকলেও তা একদিন বাড়িয়ে ৭ মার্চ পর্যন্ত করা হয়েছে। এ সময় তিনি সবাইকে স্বপরিবারে বই মেলার আসার আহবান জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT