রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের বিলাসী জীবন : রয়েছে ৪/৫ জন স্ত্রী

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ৪, ২০২১
  • 253 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

কক্স৭১

কক্সবাজারের উখিয়া কুতুপালংয়ের রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পাশেই বখতিয়ার মার্কেট। এ মার্কেটেরই একটি দোকান ‘এডি স্টোর’। অনেক পণ্যের মধ্যে একটি টি-শার্টের দাম ১০ হাজার টাকা। এ মার্কেটেই এডি স্টোরের মতো রয়েছে অনেক অভিজাত কাপড়ের দোকান। রয়েছে অন্তত ২৫টি জুয়েলারি শোরুম, ১০টি বিউটি পারলার, ২০০-এর মতো দামি ব্র্যান্ডের মোবাইল শোরুম। শুধু বখতিয়ার মার্কেট নয়, ক্যাম্প ঘিরে গড়ে উঠেছে বালুখালী বলিবাজারসহ অন্তত ছয়টি মার্কেট। এসব মার্কেটে বিক্রি হচ্ছে বিশ্বের নামিদামি ব্র্যান্ডের বিভিন্ন পণ্য। অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, এসব পণ্যের বিক্রেতা আর ক্রেতা খোদ রোহিঙ্গারা।
গত সাত দিন টানা উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্প ঘুরে জানা গেছে, নৃশংসতা আর মাদক ব্যবসা পুঁজি করে বিলাসী জীবন যাপন করছে রোহিঙ্গারা। উখিয়া, টেকনাফে গড়ে ওঠা রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোর পাশের বিভিন্ন মার্কেটে পাওয়া যাচ্ছে বিশ্বের নামিদামি ব্র্যান্ডের বিভিন্ন পণ্য। সাদা চোখে কর্মহীন মনে হলেও রোহিঙ্গারাই এসব বিলাসী পণ্যের ক্রেতা। শুধু তাই নয়, ১২ বাই ১২ বর্গফুটের ঘরে বসবাসের কথা থাকলেও তাদের অনেকেই চার-পাঁচ জনের জায়গা দখল করে ঘর বানিয়েছেন। শর্তানুযায়ী পাকা ঘর বানানোয় নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তারা তার ধার ধারছেন না। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যদের চোখের সামনে এসব ঘটলেও তারা রহস্যজনক কারণে নীরব। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নিরীহ রোহিঙ্গাদের ব্যবহার করে বিশেষ ফায়দা লুটে নিচ্ছে রোহিঙ্গাদের মধ্যে গড়ে ওঠা আরাকান রোহিঙ্গা সলভেশন আর্মি (আরসা), রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন, আল মাহাজসহ বিভিন্ন সশস্ত্র সংগঠনের সদস্যরা। আবার মানবাধিকারের কথা বলে নেপথ্য থেকে তাদের সমর্থন জোগাচ্ছে দেশি-বিদেশি কিছু উন্নয়ন সংস্থা।

কক্সবাজার জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার) রফিকুল ইসলাম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘ক্যাম্পগুলোর দায়িত্বে নিয়োজিত এপিবিএন ইউনিটসহ বিভিন্ন আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সমন্বয়ে কাজ করে যাচ্ছে জেলা পুলিশ। ক্যাম্পগুলোয় প্রায়ই নানা অপরাধের খবর আমরা পাই। প্রচলিত আইন অনুসারে আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করি। অপরাধ নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য জেলার সমন্বয় সভায় কয়েকটি প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছে।’
তিনি আরও বলেন, ‘আইন প্রয়োগকারী সংস্থার একার পক্ষে রোহিঙ্গাদের অপরাধ নির্মূল করা সম্ভব নয়। দেশপ্রেমের জায়গা থেকে স্থানীয় কমিউনিটিসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনকেও এগিয়ে আসতে হবে।’
সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে ও অনুসন্ধানে জানা গেছে, রোহিঙ্গাদের সশস্ত্র গ্রুপগুলো ক্যাম্পে তাদের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে হামেশাই জড়িয়ে পড়ছে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে। গত এক সপ্তাহ আগেও গভীর রাতে কুতুপালং রেজিস্টার্ড ক্যাম্প ও লম্বাশিয়ায় দুটি গ্রুপের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। প্রায় আধঘণ্টা পর ঘটনাস্থলে আর্মড পুলিশের (এপিবিএন) সদস্যরা পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

আজমান হক (ছদ্মনাম) নামে এক রোহিঙ্গা কাজ করেন স্থানীয় একটি বেসরকারি সংস্থায়। এই প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা হয় তার। নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করে তিনি বলেন, এক মাস আগে ক্যাম্প-৫ এলাকায় তার এক আত্মীয়ের বাসায় রাতযাপন করছিলেন তিনি। গভীর রাতে ঘরের পাশের কবরস্থানে কিছু মানুষের আনাগোনার শব্দ পেয়ে বেরিয়ে দেখতে পান একটি কবরে অন্তত ১০ জনকে পুঁতে রাখা হচ্ছে। কাউকে কিছু জিজ্ঞেস না করে তিনি পুনরায় ঘরে ফিরে আসেন। পরদিন সেই আত্মীয়ের কাছে জানতে পারেন মুন্না গ্রুপ (সাবেক আরসা) ও আরসার সদস্যদের সংঘর্ষে ১৫ জনের মতো ওই রাতে মারা যায়। ওই কবরস্থানে মৃতদেহগুলো পুঁতে রাখতে নিয়ে আসা হয়েছিল। সেই সংঘর্ষে আরসার চার সদস্য মারা গিয়েছিল।

জানা গেছে, খুন, ডাকাতি, ছিনতাই করে নিজেদের শক্তি-সামর্থ্য জানান দিচ্ছে ক্যাম্পগুলোয় গড়ে ওঠা সশস্ত্র গ্রুপগুলো। ক্যাম্পের অভ্যন্তরের দোকান ও বাড়ি টার্গেট করে বাড়িয়ে দিচ্ছে চাঁদার হার। পছন্দ অনুযায়ী মেয়েদের তুলে নিয়ে ধর্ষণ করছে। মাঝেমধ্যে সুন্দরী তরুণীদের বিয়েও করে ফেলছে জোরপূর্বক। সন্ত্রাসীদের বিয়ের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ার দুঃসাহস দেখানোর মতো অভিভাবক পাওয়া খুবই বিরল। প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়া পরিবারের ওপর নেমে আসে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ। পরিবারের সদস্যদের তুলে নিয়ে টর্চার সেলে সীমাহীন নির্যাতনও ঘটেছে বলে জানিয়েছেন অনেক বাসিন্দা। প্রায় প্রতি রাতেই রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বিভিন্ন ঘরে বসে জলসার আসর। ক্যাম্পের সুন্দরী তরুণীদের নিয়ে আসা হয় সন্ত্রাসী গ্রুপের সদস্যদের মনোরঞ্জনের জন্য। জলসাঘরের পাহারায় থাকে গ্রুপের সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা। সারারাত ফুর্তি করার পর ভোরের দিকে এসব দুর্বৃত্ত অজ্ঞাত স্থানে চলে যায় বলে জানিয়েছেন অনেক নিরীহ রোহিঙ্গা সদস্য। তবে আরসার অনেক সদস্য সুন্দরী তরুণীদের কিছুদিনের জন্য বিয়ে করেন। কিছুদিন পর অন্য কোনো সুন্দরীকে চোখে পড়লে আগের জনকে ডিভোর্স দিয়ে দেন।

৬ নম্বর ক্যাম্পের ঠিক সামনে খাসজমির ওপর গড়ে উঠেছে রোহিঙ্গাদের বড় একটি বাজার। দেশি-বিদেশি অনেক পণ্য পাওয়া যায় সেখানে। অভিযোগ রয়েছে, আরসার পৃষ্ঠপোষকতায় স্থাপিত বিশাল এ মার্কেট। অন্তত ৭০০ দোকান রয়েছে সেখানে। স্থাপনার বাইরে ফুটপাথে দোকানদারি করছেন আরও অন্তত ২০০ রোহিঙ্গা। এ মার্কেট থেকে নিয়মিত চাঁদা আদায় করছে আরসার লোকজন। একই অবস্থা ক্যাম্প-৪ পূর্বর সামনে গড়ে ওঠা বাজারেরও। এসব মার্কেট থেকে আদায় করা চাঁদার টাকা খরচ করছে সন্ত্রাসকান্ডে। মহেশখালী থেকে কিনছে বিভিন্ন ধরনের আগ্নেয়াস্ত্র।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ৭ নম্বর ক্যাম্পের এক মাঝি বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, সন্ত্রাসীরা খুবই ভয়ংকর। তারা যাকে ইচ্ছা বিয়ে করে। টার্গেট তরুণীদের অভিভাবকরা সন্ত্রাসীদের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেওয়ার সাহস করেন না। কথা না শুনলে নেমে আসে ভয়াবহ বিপদ। আবার অনেক রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী বিভিন্ন ক্যাম্পে বিয়ে করে তাদের নিরাপত্তার কৌশল হিসেবে।
১৮ নম্বর ক্যাম্পের এক মাঝি জানান, অনেক অভিভাবক আরসার সন্ত্রাসীদের কাছে তাদের মেয়েকে বিয়ে দেন ক্যাম্পে একটু ভালো থাকার জন্য। এ কারণে তাদের অনেকে সম্মান দেয়, সমীহ করে চলে।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজের তথ্যানুযায়ী চলতি বছরের আগস্ট পর্যন্ত গত চার বছরে টেকনাফ ও উখিয়ার শিবিরগুলোয় ১০৮ জন নিহত হয়েছেন। এর ৭৮ জনকে অতর্কিতভাবে দুর্বৃত্তরা খুন করে গেছে। বিভিন্ন পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলিতে প্রাণ হারান ২২ জন। অপহরণের পর হত্যা করা হয় দুজনকে। এ ছাড়া বিভিন্ন ঘটনায় খুন হন ছয়জন।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর এক হিসাব থেকে জানা গেছে, প্রথম তিন বছরে প্রায় ১২ ধরনের অপরাধে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ৭৩১টি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় অনেকে জেলও খেটেছেন।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ২৩ অক্টোবর থেকে ক্যাম্প-১৯-এর ব্লক-ডি/৬ মৌলানা আবদুর রহমান ও তার ভাই এহসান সরকারের বিধিনিষেধ তোয়াক্কা না করে ইটের বাড়ি বানাচ্ছেন। বাড়িটি এখনো নির্মাণাধীন।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, কুতুপালং ক্যাম্পের সামনে গড়ে ওঠা বখতিয়ার মার্কেটে রয়েছে অন্তত ২ হাজার দোকান। যদিও বখতিয়ার মার্কেটের সীমানা ঘেঁষেই রয়েছে আরও দুটি মার্কেট। এসব মার্কেটেই মিলছে অভিজাত কাপড়ের শোরুম, পারলার, কসমেটিকস, জুয়েলারি শপ, মোবাইলের শোরুম। এসব মার্কেটের ৯০ শতাংশ ক্রেতা রোহিঙ্গারা। বখতিয়ার মার্কেটের ভিতরে একটি দোকানের নাম এডি স্টোর। এ দোকানটি পাইকারি। বার্মিজ ও থাই পণ্য এখানে পাওয়া যায়। এখানে মিলছে পোল মার্ক ব্র্যান্ডের ৮ হাজার টাকা দামের গেঞ্জি। রয়েছে ডাকস্্, লন্ডন ব্র্যান্ড, কেঅ্যান্ডজি ব্র্যান্ডের গেঞ্জি। একই মার্কেটের খালেদ ক্লথ স্টোরে পাওয়া যায় ১৫ হাজার টাকা দামের লেহেঙ্গা, ১০ হাজার টাকা দামের শাড়ি। তবে প্রায় প্রতিটি ক্যাম্পের অভ্যন্তরে গড়ে ওঠা মার্কেটের ব্যবসায়ীরা চাহিদা সাপেক্ষে আরও দামি কাপড় কিংবা আসবাবপত্র সরবরাহ করেন রোহিঙ্গা ক্লায়েন্টদের।

র‌্যাব-১৫-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল খায়রুল ইসলাম সরকার বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের অপরাধ নিয়ন্ত্রণে র‌্যাব সদস্যরা সর্বোচ্চটা দিচ্ছেন।’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাধ বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ফারজানা রহমান বলেন, ‘আমরা রোহিঙ্গা ক্যাম্প নিয়ে কাজ করার সময় দেখেছি এমন কোনো অপরাধ নেই যা সেখানে ঘটে না। একজন মাদক ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা হয়েছে সে অবলীলায় বলেছে তার ১ লাখ পিস ইয়াবার মধ্যে ৫০ হাজার পিস ছিনতাই হয়েছে। এটা খুবই ভয়াবহ একটি বিষয়। তবে আমি বলব যেসব দেশি-বিদেশি সংস্থা সেখানে কাজ করছে তাদের যেন মনিটরিংয়ের মধ্যে রাখা হয়। আমাদের দেশের ফ্রেমের মধ্যেই যেন তারা কাজ করে। রোহিঙ্গাদের অপরাধ নিয়ন্ত্রণে আনতে না পারলে রাষ্ট্রকেই এর খেসারত দিতে হবে।’

বিলাসী-জীবন যাপন করছে কারা : কুতুপালং রেজিস্টার্ড ক্যাম্পের ডা. আজিজ। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বখতিয়ার মার্কেটে রয়েছে ওষুধের দোকানের আড়ালে তার মাদক ব্যবসা। তার বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিক মাদক মামলা। ক্যাম্পের ভিতরে তার বাড়ি পাঁচ শতাংশের ওপর। বাইরে থেকে বোঝা না গেলেও বাড়ির ভিতরের সাজসজ্জা চোখে পড়ার মতো। একই ক্যাম্পের আরেকজন রোহিঙ্গা ডা. ওসমান। তার বিরুদ্ধেও রয়েছে দুটি মাদক মামলা। বর্তমানে তিনি সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অপরাধের মামলায় কারাগারে রয়েছেন। ক্যাম্পের ভিতরে তার বাড়ি কমপক্ষে ৫ শতাংশের ওপর। ঘরের অভিজত আসবাবপত্র যে কারও নজর কাড়বে। একই ক্যাম্পের রোহিঙ্গা হাফেজ জালাল। ক্যাম্পে অভ্যন্তরে রয়েছে তার একটি মাদরাসা। অভিযোগ, আরসার সঙ্গে রয়েছে তার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ। মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গারা তার মাদরাসায় পড়তে আসে।
মুন্না গ্রুপের সেকেন্ড ইন কমান্ড দেলোয়ার রীতিমতো আতঙ্ক। তার সরাসরি নেতৃত্বে চলছে মাদক ব্যবসা। এই প্রতিবেদক ক্যাম্পে অবস্থানের সময় চাঁদা না দেওয়ার অপরাধে এক নিরীহ রোহিঙ্গার কান কেটে দেয় সে। পরে ওই নিরীহ রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সিআইসি রাশিদুল ইসলামকে অবহিত করেন।ক্যাম্প-১২ বি-ব্লকের বাসিন্দা জাহিদ হোসেন লালু আরসার ভয়ংকর সন্ত্রাসী হিসেবে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কাছে চিহ্নিত। ৩৫ বছরের লালু এরই মধ্যে অফিশিয়ালি পাঁচটি বিয়ে করেছেন। তার প্রথম স্ত্রী নুরসাবা। এ সংসারে তার তিন সন্তান। দ্বিতীয় স্ত্রী রেহানা। তিনি বর্তমানে গর্ভবতী। তৃতীয় স্ত্রী আফসারা। তার কোনো সন্তান নেই। চতুর্থ স্ত্রী সুমাইয়া। পঞ্চম স্ত্রী আনোয়ারা। তিনি বর্তমানে ভারতে বসবাস করছেন বলে ক্যাম্পে গুজব রয়েছে। তবে এতগুলো স্ত্রী থাকার পরও তাতে তৃপ্ত নন লালু। মাঝেমধ্যেই বিভিন্ন ক্যাম্পে তার নেতৃত্বে জলসা বসে। ওই জলসায় উপস্থিত থাকেন বিভিন্ন সশস্ত্র গ্রুপের শীর্ষ নেতারা। অভিযোগ রয়েছে, বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থার কিছু লোকের সঙ্গে তার বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে। মাঝেমধ্যে ক্যাম্প-১-এর হেড মাঝি মশিউল্লার পৃষ্ঠপোষকতায় সেখানকার কয়েকটি ঘরে বসে বিশেষ বৈঠক। এসব বৈঠকে অংশ নেন শীর্ষ কমান্ডার শমির উদ্দীন, আবদুর রহিম, খায়রুল আমীন, ফয়জুল্লাহ, জুবায়ের, মাস্টার রফিক, হেফজুর রহমান। বৈঠক শেষে সেখানে রাখা হয় মনোরঞ্জনের বিশেষ ব্যবস্থা। শমির উদ্দীনের তিনটি বিয়ের বিষয়ে তথ্য পাওয়া গেছে।
কমান্ডার মৌলভি ওলি ওরফে এমভি আকিসের চার বিয়ের ব্যাপারে তথ্য পাওয়া গেছে। প্রথম স্ত্রী ১৮ নম্বর এবং দ্বিতীয় স্ত্রী ৫ নম্বর ক্যাম্পে বসবাস করেন। সম্প্রতি তিনি আরও দুটি বিয়ে করেছেন বলে ক্যাম্পে গুজব রয়েছে।
কমান্ডার সেলিমের তিন স্ত্রী। একজন মিয়ানমারে, একজন ক্যাম্প-৫ ও আরেকজন ক্যাম্প-১৭-তে বসবাস করেন।
রোহিঙ্গাদের নিয়ে প্রায় তিন বছর ধরে কাজ করছেন একটি সংস্থার এমন একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা বিভিন্ন ক্যাম্পে বিয়ে করে। নজরদারি এড়াতে তারা একেক সময় একের স্ত্রীর বাসায় অবস্থান করে। অনেক অভিভাবক সন্ত্রাসীদের সঙ্গে তাদের মেয়ের বিয়ে দেন ক্যাম্পে একটু ভালোভাবে দাপটের সঙ্গে বসবাসের জন্য।’
তিনি আরও বলেন, ‘বিলাসী-জীবন যাপনের অন্যতম নিয়ামক মাদক, অস্ত্র ও চোরাচালান। ক্যাম্পের অভ্যন্তরে নিরীহ রোহিঙ্গাদের কাছ থেকেও তারা নিয়মিত চাঁদা উঠায়। এখনো অনেক উন্নয়ন সংস্থা গোপনে তাদের পৃষ্ঠপোষকতা করে। অভিযোগ রয়েছে বিভিন্ন ক্যাম্পের মাঝিরা বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের এজেন্ট হিসেবে কাজ করেন। তারা নিয়মিতভাবে তথ্য পৌঁছে দেন।’
এ ব্যাপারে এপিবিএন-৮ (আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন)-এর অধিনায়ক শিহাব কায়সার খান বলেন, ‘অপরাধ নিয়ন্ত্রণে আমরা অনেক প্রস্তাব দিয়েছি উন্নয়ন সংস্থাগুলোকে। একটা প্রস্তাব ছিল তালিকাভুক্ত অপরাধীদের পরিবারে রেশন সুবিধা বন্ধ করার। তবে এ প্রস্তাবে তারা সাড়া দিচ্ছে না। একই সঙ্গে ক্যাম্পসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন তথ্য শেয়ার করার জন্য আমরা দাবি জানিয়েছি। তাতেও সাড়া মিলবে বলে মনে করছি না।’

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT