শিরোনাম :

রমজানে বাজার মনিটরিংয়ের দাবী, ঈদগাঁওতে কাঁচাবাজারে জিনিসপত্রের চড়াদাম

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, মে ৫, ২০১৯
  • 353 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

এম আবুহেনা সাগর,ঈদগাঁও
আসন্ন পবিত্র রমজান মাসে মাছ,মাংস,সবজির দ্বিগুন দাম হাকাচ্ছে ব্যবসায়ীরা। ক্রেতাদের চাহিদা বুঝে যে যার মতো করে বিভিন্ন সবজির দাম চাইছেন। ৩ মে ঈদগাঁও বাজারসহ বিভিন্ন উপবাজার ঘুরে হরেক রকম জিনিসের দামের এ তারতম্য দেখা গেছে। তৎমধ্যে বাজারে বেড়ে গেছে শাক-সবজি ওমাছ-মাংসের দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে কিছুটা কমেছে ডিমের দাম। বাজারে প্রতি কেজি দেশি আলু বিক্রি হচ্ছে ৩০/৩৫,অন্য জাতের আলু ২০/২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
কজন ক্রেতাদের মতে,প্রতি বছর রমজান মাস আসলে অসাধু ব্যবসায়ীদের একটি চক্র অতি মুনাফার লোভে বিভিন্ন পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেন। এবারো তার ব্যতিক্রম হয়নি। রোজা শুরুর পূর্বে তারা নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। গ্রীষ্মকালীন শাক-সবজিতে বাজার ভরে উঠলেও দাম কমছেনা বরং প্রায়শ বৃদ্বি পাচ্ছে।
বাজার ঘুরে দেখা গেছে,বাজারভেদে প্রতিকেজি করলা ৫০ টাকা,টমেটো ৪০ টাকা,হাইব্রীড ফল ৩০ টাকা,দেশী ফল ৩৫ টাকা,বেগুন ৩০ টাকা, কাঁচামরিচ ৭০/৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খুচরা সবজি বিক্রেতাদের মতে,পাইকারি বাজারে দাম বেশি হওয়ায় তাদের বেশি টাকায় কিনতে হচ্ছে।
এছাড়া ব্রয়লার মুরগি ১৫৫/১৬০ টাকা,লাল লেয়ার মুরগি ২২০/২৩০ টাকা কেজিতে। গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ৫শত টাকার মত। বিভিন্ন ধরনের মাছও বেশ চড়া দামে বিকিকিনি হচ্ছে। বাজারে ডিমের দাম কিছুটা কমেছে। রমজান মাসে বাজার মনিটরিং করার বিষয়ে দেখভাল করার যেন কেউ নেই। বাজারে তদারকির অভাবেই ব্যবসায়ীরা ইচ্ছেমতো কারসাজি করে ফায়দা লুটে নিচ্ছেন বলে অভিযোগ ক্রেতাদের। রমজান মাসে নিত্য প্রয়োজনীয় বাজার মনিটরিংয়ের দাবী জানান ক্রেতা সাধারন।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT