মৃত ও প্রবাসী ব্যাক্তির স্বাক্ষর জালিয়াতি করে আদালতে মামলা

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী ৪, ২০২১
  • 192 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

কক্স৭১
তিনজন মৃত ও লন্ডনে স্থায়ীভাবে বসবাসকারী এক ব্যক্তির নামে নিয়মিত হাজিরা দেখানো হচ্ছে আদালতে। চাঞ্চল্যকর এই বিষয়টি আদালতের নজরে আনা হলে বিচারক ধার্য তারিখে চিহ্নিত ব্যক্তিদের স্বশরীরে আদালতে উপস্থিত করানোর জন্য বাদী ও বাদীর আইনজীবিকে নির্দেশ দেন। সম্পত্তির লোভে একজন সরকারী কর্মচারী (ডাক্তার) হয়ে আদালতের সঙ্গে প্রতারণা করার এহেন ঘৃন্যতম বিষয়টি জানাজানি হলে আদালত পাড়ায় ব্যাপক সমালোচনা চলছে।
সূত্র জানায়, কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং এলাকার বাসিন্দা ও কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চাকরিরত ডাক্তার আলী হোছাইন সুমন বাদী হয়ে জমিজমা সংক্রান্ত কক্সবাজার যুগ্ম জেলা জজ আদালতে (২য়) একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় বিবাদী করা হয় এ্যাডভোকেট ছমি উদ্দিনসহ তিন ব্যক্তিকে। আলী হোছাইন সুমনের সঙ্গে বাদীর তালিকায় মৃত তিন ব্যক্তি ও একজন লন্ডন প্রবাসিসহ আরও ১১ জনের নাম দেয়া হয়। এদের অধিকাংশ ব্যক্তির স্বাক্ষর জাল করে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে ডাক্তার সুমনের আপন বড় ভাই আমির হোছন ও বড় বোন হাজেরা বেগম আদালতে মামলা দায়েরের প্রায় সাড়ে তিন বছর আগে মৃত্যু বরন করেন। গত বছর (২০২০) সালে মো: হোছন নামে আরও একজন মারা গেছেন। অথচ এ পর্যন্ত ওইসব মৃত ব্যক্তির নামে আদালতে নিয়মিত হাজিরা দেখানো হচ্ছে।
স্থানীয়দেরর দাবী, সম্পত্তির কারনে মামলা হতে পারে তবে একজন শিক্ষিত মানুষ হয়ে মৃত এবং বিদেশ থাকে উনাদের স্বাক্ষর জাল করা মোটেও উচিত হয়নি। তারা আরও জানান, ৩নং বাদী আলী হোছাইন সুমনের বড় বোন ২০১৩সালের ২৫ নবেম্বর মারা গেছেন। ২০১৪ সালের ২ ফেব্রæয়ারি মারা গেছেন তার সহোদর আমির হোছাইন। ২০১০ সাল থেকে সরোয়ার জাহান নামে (বাদীর ভাইপু) এক ব্যক্তি লন্ডনে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। ৩নং বাদী সুমন তারাসহ অন্যদের দস্তখত জাল করে ২০১৬ সালে আদালতে মামলা (অপর-১৪/১৬) দায়ের করেন। মামলা দায়েরের আগে থেকে অদ্যাবদি ওই লন্ডন প্রবাসি সরোয়ার জাহান দেশে আসেননি। হাজেরা বেগম ও আমির হোছন নামের দুই নারীপুরুষ মারা যান মামলা দায়ের করার প্রায় তিন বছরের অধিক সময় আগে। অন্তত ৭বছরের বেশী সময় ধরে আদালতে মৃত ব্যক্তিদের ও লন্ডন প্রবাসির নামে হাজিরা দেখানো হচ্ছে আদালতে।
বিষয়টি আদালতের নজরে আনা হলে বিচারক ধার্য তারিখে (২৯ নবেম্বর/২০) ৫ থেকে ১২নং বাদীকে স্বশরীরে আদালতে হাজির করাতে ৩নং বাদী আলী হোছাইন সুমন ও তার আইনজীবীকে নির্দেশ প্রদান করেন। মৃত ও লন্ডন প্রবাসিকে স্বশরীরে হাজির করাতে ব্যর্থ বাদী ধার্য তারিখে আদালতে সময় প্রার্থণা করেছেন বলে জানা গেছে। আদালতের নির্দেশ মতে বাদীকে ২৪ফেব্রæয়ারি ধার্য তারিখে অবশ্যই জবাব দিতেই বলা হয়েছে। এ ব্যপারে মামলার বিবাদী এড, ছমি উদ্দিন জানান,সহায় সম্পত্তি নিয়ে মামলা হতে পারে। কিন্তু আদালতকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বাদীদের স্বাক্ষর জাল করে মামলা করা আরেকটি ফৌজদারী অপরাধ। মামলায় সব বাদীর স্বাক্ষর একজনের হাতের লেখা তাছাড়া একজন বিদেশে থাকে তিনি কিভাবে স্বাক্ষর করলেন আর মৃত ব্যাক্তিদের ওয়ারিশদের মামলায় অন্তর্ভূক্ত করা যেত সেটা না করে উনাদের নামে স্বাক্ষর দিয়ে যাচ্ছেন সেটা আমি আদালতের নজরে আনায় আদালত জালজালিয়াতির বিষয়টি বুঝতে পেরে স্বশরীরে হাজির হওয়ার নির্দেশ প্রদান করেছেন। এ ব্যপারে ডাক্তার আলী হোসাইন সুমন বলেন,আমি মামলার বাদী না আমার বড় ভাই মামলা করেছে উনার মৃত্যুর পর আমি মামলা চালাচ্ছি। সেখানে আইনগত কোন সমস্যা হলে সেটা আদালত যেভাবে মনে করে সেভাবে রায় দেবে সেখানে অন্যকারো মাথা ঘামানোর প্রয়োজন নাই।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT