মাঠের অভাবে ফেরত গেল সাউথ এশিয়ান মহিলা ফুটবল টুর্নামেন্টের খেলা

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, অক্টোবর ২৫, ২০২১
  • 95 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

মাহাবুবুর রহমান.
কক্সবাজারে একটি উপযুক্ত খেলার মাঠ না থাকায় ফেরত গেছে সাউথ এশিয়ান মহিলা ফুটবল চ্যাম্পিয়নশীপের খেলা। এএফসি এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন (এএফসি)র কাছে আবেদন করার পরে তারা পর্যটন নগরী কক্সবাজারে কয়েকটি ম্যাচ দেওয়ার ঘোষনা দেওয়ার পরও শুধু মাত্র মাঠের কারনে হচ্ছেনা কক্সবাজারে আর্ন্তজাতিক ফুটবলের আসর। বাফুফে এবং ডিএসএ কর্মকর্তাদের দাবী এই আর্ন্তজাতিক ম্যাচ কক্সবাজারে করতে পারলে বাংলাদেশ সহ কক্সবাজারের সুনাম হতো একই সাথে বিভিন্ন দিকে উন্নয়ন হতো। তবে মাঠ সংস্কার কাজ চলার কারনে তা সম্ভব হয়নি।
বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সদস্য বিজন বড়–য়া জানান, ২০১০ সালে কক্সবাজারে সফল ভাবে সাউথ এশিয়ান মহিলা ফুটবল টুর্নামেন্টের বেশ কয়েকটি ম্যাচ আয়োজন করা হয়েছিল। সেই দাবী এবং বাস্তবতার প্রেক্ষিতে বাফুফে আবারো এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশনের কাছে আবেদন করেছিল কক্সবাজারে যাতে কয়েকটি ম্যাচ দেওয়া হয়। সর্বশেষ মালয়েশিয়ার কুয়ালালমপুরে অনষ্টিত এএফসির সভায় কক্সবাজারে অন্তত ৪ টি ম্যাচ অনুষ্টিত হওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। তবে কক্সবাজারে ফুটবলের মাঠ না থাকায় সেই সুযোগ আমরা গ্রহন করতে পারিনি। এখন হয়তো বাংলাদেশের অন্যকোন জেলায় বা অন্য কোন দেশে এই আয়োজন করতে হবে। তিনি জানান,আমার জানা মতে কক্সবাজার স্টেডিয়াম এবং ইনডোর স্টেডিয়াম প্রকল্পের কাজ জুন জুলায়ের দিকে শেষ হওয়ার কথা কিন্তু এখনো কাজের ৬০% কাজ শেষ হয়নি। যদি ঠিকাদার ডিসেম্বরের মধ্যেও কাজ শেষ করে দিত তাহলে আমরা আর্ন্তজাতিক ম্যাচ গুলো চালাতে পারতাম। কিন্তু বান্তবে মনে হচ্ছে সেটাও সম্ভব না। এ ব্যপারে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য প্রভাষক জসিম উদ্দিন বলেন,জেলা ক্রীড়া সংস্থার মাঠ ভরাট থেকে শুরু করে গ্যালারী নির্মাণ কাজ খুবধীর গতিতে চলছে,আমরা কয়েকবার বিষয়টি নিয়ে ঠিকাদারকে বলেছি। তবে বাস্তবতা হচ্ছে কে শুনে কার কথা। যদি ঠিকমত কাজ শেষ করতো তাহলে কয়েকটি আর্ন্তজাতিক ম্যাচ দেখার সুযোগ পেত কক্সবাজারের মানুষ।
এদিকে রায়হান নামের ঠিকাদারের এক প্রতিনিধি জানান,আমাদের ইনডোর স্টেডিয়াম নির্মাণ কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে আর মাঠ এবং গ্যালারীর কাজও প্রায় শেষ পর্যায়ে। আমরা সাধ্যমত চেস্টা করছি কাজ শেষ করে দেওয়ার জন্য। তবে এই কাজের ঠিকাদার ক্রীড়া মন্ত্রনালয়ের সচিবের আপন ভাই তাই উপর মহলে কেউ কিছু বলে সুবিধা করতে পারবে না।
এ ব্যপারে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ সভাপতি আবছার উদ্দিন বলেন,মাঠ প্রস্তুত না হওয়ার কারনে আমরা অনেক ইনডোর গেইম সহ নিয়মিত খেলাধুলার চালাতে পারছিনা। গত ২ বছর করোনার জন্য খেলা চলেনি এখন মাঠের জন্য সব কিছু বন্ধ এটা আসলেই দুঃখ জনক। আমি দাবী করবো বাকি কাজ দ্রæত সময়ের মধ্যে শেষ করা হোক।
এ ব্যপারে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন বলেন,ইনডোর স্টেডিয়াম,জেলা স্টেডিয়ামের মাঠ ও গ্যালারী নির্মাণ সহ প্রায় ২২ কোটি টাকার কাজ চলছে। ঠিকাদারকে আমরা অনেকবার বলেছি দ্রæত কাজ শেষ করার জন্য। তাদের কাজ শেষ করার সময় আবার বাড়িয়ে আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত করা হয়েছে। তবে আমি কাজে কোন অনিয়ম হতে দিইনি। তবে আমি আশংকায় আছি ডিসেম্বরেও তারা কাজ শেষ করতে পারেকিনা।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT