ভিসা নামে প্রতারণা: নিঃস্ব হয়ে দেশে ফিরলেন মান্নান

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ফেব্রুয়ারী ১০, ২০২০
  • 255 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

কাতারের ভিসা দিয়ে বিদেশ পাঠিয়ে,দীর্ঘ ৯ মাস যাবৎ ঐদেশের বতেকা নামক পাশ
না দিয়ে অবৈধ রেখে প্রতারণা করায়,বাংলাদেশে ফিরে এসে নিঃস্ব হলেন
পার্বত্য লামা উপজেলার ফাসিঁয়াখালী ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ
হায়দারনাশী গ্রামের মৃত নুর আহামদের পুত্র আব্দুল মান্নান।

ভিসাদাতা হলেন,একই গ্রামের কাতার প্রবাসী (প্রতারক) নুরুল কবিরের স্ত্রী
সেলিনা আকতার।

কাতারের ভিসা বিক্রি নন- জুডিসিয়াল ৩শত টাকার স্ট্যাম্পে লিখিত দলিল ও
চুত্তিতে দেখা যায়,ভিসার মূল্য সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা।উক্ত টাকার ভিতরে
ক্রেতাকে ১৫ দিনের মধ্য বিদেশ পাঠানো,মেডিকেল খরচ,বিমানের টিকেট,বিদেশ
গমনের পরে ১বছরে একামা খরচ,কপিল ধরিয়ে দিয়ে কাজে জয়েন্টের সাহায্য
করা,ফ্রি ভিসা,ও বিদেশ পৌছে ২ মাসের মধ্য একামা দেওয়া, ব্যর্থ হলে সমস্ত
টাকা বিনা অজুহাতে পরিশোধে বাধ্য থাকার কথা স্বীকারে,স্ট্যাম্প নং-
কল-০৩৩২১৯৯-০৩৩২২০০-০৩৩২২০১,মূলে চুত্তি বদ্ধ হন কাতার প্রবাসীর স্ত্রী
সেলিনা।

অভিযোকারী আব্দুল মান্নান জানান,আমি দীর্ঘ ৯ মাস কাতারের প্রবাস জীবন
কাটিয়েছি।কিন্তু আমাকে নুরুল কবির(কাতার প্রবাসী) কপিল ধরিয়ে না
দিয়ে,একামা বা বতেকা না দেওয়াই উল্টো বাড়ী থেকে ২০ হাজার টাকা নিয়ে
নিঃস্ব হয়ে দেশে ফিরে এসেছি।ঐদেশে রাষ্ট্রীয় স্হায়ী পাশ ছাড়া কোথাও যাওয়া
যায় না।একামা বা বতেকা চাইলে কবির আমাকে উল্টো হুমকি দিত।দেশে এসে
স্হানীয় লোকজনকে বিচার দিলে তাদের ক্ষমতার দাপটে কেউ বিচার করে না।তাই
এবিষয়ে আমি আইনের আশ্রয় নিব।আমার স্বাক্ষি- প্রমাণ,ভিডিও রেকর্ড সব আছে।

চুত্তিদাতা সেলিনা আকতার সাথে সরাসরি কথা বললে,তিনি বলেন,আমার স্বামীর
কথামতে স্ট্যাম্পে চুত্তি করেছি।কেন একামা বা বতেকা পেলনা সেটি ওনাদের
বিষয়।তবে তাকে আপাতত কাজকর্ম করার জন্য অস্হায়ী লিখিত কি কাগজ একটা
দিয়েছে বলেছেন।তবু দীর্ঘ ৯ মাসমত থাকার পরে মান্নান দেশে চলে এসেছে কেন
বুঝতেছিনা।এখানে আমার জন্য বিচার দিলে কি হবে? আমি করব?।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT