ব্যাংকে ভুয়া রেজুলেশন দিয়ে ডিএফএ’র বিপুল টাকা লোপাট

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ২, ২০২০
  • 220 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

মাহাবুবুর রহমান,
কক্সবাজার ফুটবল এসোসিয়েশন (ডিএফএ) ব্যাংক হিসাবে ভুয়া রেজুলেশন দিয়ে বিপুল টাকা আত্বসাৎ করেছে জেলা ডিএফএর সভাপতি সহ কতিপয় কর্মকর্তারা। তবে অনিয়মের বিষয়ে জানতে পেরে ব্যাংক হিসাবে লেনদেন স্থগিত করেছে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। জানা গেছে কক্সবাজার ফুটবল এসোসিয়েশনের ব্যংক হিসাব নাম্বার সাউথ ইস্ট ব্যাংক কক্সবাজার শাখা ০০২২১৩১০০০০১০২৩। আর বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন(বাফুফে)র গঠনতন্ত্রের ১৮ নাম্বার ধারা অনুযায়ী ডিএফএর ব্যাংক হিসাবে চালাতে পারবে সভাপতি,সাধারণ সম্পাদক এবং অর্থ সম্পাদক। তবে কক্সবাজার ডিএফএ সম্প্রতী এখানে সাধারণ সম্পাদক এবং অর্থ সম্পাদককে বাদ দিয়ে সদস্য ছিদ্দিক আহাম্মদ দিয়ে স্বাক্ষর করিয়ে ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে বুকা বানিয়ে বিভিন্ন চেকে প্রায় ৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা উত্তোলন করেছে। সম্প্রতি বিষয়টি জানা জানি হলে মিশ্র প্রতিক্রিয়া চলছে জেলা ক্রীড়াঙ্গনে। এ ব্যপারে কক্সবাজার সাউথ ইস্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপক বাবর হোসাইন চৌধুরী বলেন,কক্সবাজার ফুটবল এসোসিয়েশনের ব্যাংক হিসাবটি ২০১০ সালের ২২ এপ্রিল খোলা হয়েছে। প্রথম থেকেই সেখানে রেজুলেশন দিয়ে ব্যাংক হিসাবেটি চলছিল। তবে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের গঠনতন্ত্রটি আমাদের কাছে জমা দেয়নি কেউ। তাই বর্তমান কমিটি একটি রেজুলেশন দিয়েছে সেই মোতাবেক আমরা লেনদেন করেছি। তবে এখানে বাফুফের গঠনতন্ত্র লংঘন করা হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে মনে হওয়ায় আমরা সেই হিসাবের লেনদেন স্থগিত রাখছি।
এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন ডিএফএ সদস্য বলেন,সম্প্রতী একটি বহু বিতর্কিত ২য়ং বিভাগ ফুটবল লীগকে সামনে রেখে এই জালিয়াতি করেছে সভাপতি সহ কতিপয় কর্মকর্তা। তারা একদিকে ব্যাংক থেকে টাকা নিয়েছে অন্যদিকে স্থানীয় সংসদ সদস্য সহ অনেক জায়গা থেকে বিপুল পরিমান টাকা তুলেছে। আর নামমাত্র একটি লীগ খেলার নামে তামাশা করেছে। মুলত এখানে বেশির ভাগ টাকা আত্বসাৎ হয়েছে।
এ ব্যপারে ডিএফএর অর্থ সম্পাদক ফরহাদুজ্জামান বলেন,মূলত বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষ। তাই আসন্ন নির্বাচন নিয়ে কতিপয় কূচক্রি মহলের ষড়যন্ত্রের কবলে পড়েছে ডিএফএ তাই তারা ভোটার বাড়াতে বাফুফের নিশেধ সত্বেও একটি বিতর্কিত ২য় বিভাড় লীগ করেছে তাই সেখানে চেকে আমি স্বাক্ষর করিনি। আর টাকা কোথায় খচর হচ্ছে কি কি খাবে খরচ হচ্ছে তারও কিছু জানাইনি আমাকে।
সাধারণ সম্পাদক জ্যোর্তিময় বড়ুয়া মঙ্গল বলেন,নিয়ম অনুযায়ী ডিএফএর সমস্ত উপ কমিটির সচিব হবে সাধারণ সম্পাদক। তবে আমাকে দিয়ে কেউ অনৈতিক সুবিধা পাবে না তাই কিছু বিতর্কিত লোকদের নিয়ে লীগ কমিটির নামে বানিজ্য করছে। তাছাড়া সেই ২য় বিভাগ লীগ না করতে নিষেধ করেছে বাফুফে তাই আমি চেকে স্বাক্ষর করিনি বলে ভুয়া রেজুলেশন নিয়ে টাকা উত্তোলন করেছে। এ ব্যপারে চেকে স্বাক্ষরকারী ছিদ্দিক আহামদ বলেন,কমিটির সভায় রেজুলেশন অনুযায়ী আমি চেকে স্বাক্ষর করেছি। এ ব্যপারে ডিএফএ সভাপতি ফজলুল করিম সাঈদী বলেন,লীগ চালাতে খরচের প্রয়োজন ছিল,আর অর্থ সম্পাদক ও সাধারণ সম্পাদক সহযোগিতা না করাতে ভিন্ন পথ নিতে হয়েছে। আর খেলাধুলার জন্য সব করা হয়েছে। তবে বাফুফের নির্দেশনা বা নিয়ম বিষয়ে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। এদিকে ভুয়া রেজুলেশন দিয়ে টাকা তুলে আত্বসাতের বিষয়ে খুব দ্রুত বাফুফে এবং দুদকের কাছে অভিযোগ জানানো হবে বলে জানান ডিএফএর অন্যান্য কর্মকর্তারা।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT