বিদ্যূৎ মিস্ত্রি থেকে কোটিপতি ইয়াবা ব্যবসায়ি আবদুল খালেকের অত্যাচারে অতিষ্ট বিসিকের মানুষ

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, আগস্ট ৫, ২০২০
  • 746 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

কক্স৭১
জেল ফেরত ইয়াবা ব্যবসায়ি সন্ত্রাসী আবদুল খালেকের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে উঠেছে বিসিক এলাকা মানুষ। প্রতিদিন ছিনতাই,চাঁদাবাজী এবং ইয়াবা সেবন এবং পরিবহণের কারনে এলাকার সাধারণ মানুষ বিরক্ত হয়ে উঠেছে তবে প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ প্রতিবাদ করারও সাহস পাচ্ছেনা। এছাড়া আবদুল খালেকের সাথে সম্প্রতী নতুন করে এলাকার অনেকে উঠতি বয়সের তরুন মরণনেশা ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছে বলে জানা গেছে তাই দ্রæত এই কুখ্যাত ইয়াবা ব্যবসায়ি ও সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার পূর্বক আইনের আওতায় আনার দাবী জানিয়েছে এলাকাবাসী।
শহরের পার্শবর্তি ঝিলংজা ইউনিয়নের বিসিক উঠনি এলাকার লোকমান হাকিমের ছেলে আবদুল খালেক ৪/৫ বছর আগেও এলাকায় সামান্য কারেন্ট মিস্ত্রির কাজ করতো পরে টমটম চালিয়ে কোন প্রকার চলতো কিন্তু এখন সেই খালেকের রয়েছে ৩ টি দোকান, আলিশান ২ টি বাড়ি, ৫ লাখ ৭০ হাজার টাকাদামের মটরসাইকেল সহ অনেক জমি। সরজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে বিসিক এলাকা থেকে সর্ব প্রথম চট্টগ্রামে ইয়াবা নিয়ে আটক হয় এই আবদুল খালেক পরে দীর্ঘ দিন জেল খেটে এসে আবারো পুরু দমে চালায় ইয়াবা ব্যবসা। তার কল্যাণে এখন কোটি পতি বনে গিয়ে এলাকার মানুষকে সীমাহিন অত্যাচার করছে। রাস্তা দিয়ে যাওয়া সে কোন মানুষকে তল্লাসীর নামে হয়রানী,মানিব্যাগ থেকে জোর পূর্বক টাকা ছিনতাই,মোবাইল ছিনতাই,জমি দখল করতে ভাড়াটিয়া গুন্ডা হিসাবে ব্যবহার হওয়া সহ এমন কোন অপরাধ নেই আবদুল খালেক করছেনা। সম্প্রতী পিএমখালীর ছনখোলা এলাকায় একটি জমিতে চাঁদাবাজী করতে গিয়ে আটক হয়ে দীর্ঘ দিন জেল খেটে এসে আবারো তার বাহিনি দিয়ে শুরু করেছে নানান অপকর্ম। এলাকাবাসীর দাবী খালেকের ২ স্ত্রীর এর মধ্যে এক স্ত্রীর বাড়ি টেকনাফ নাজির পাড়া,সেখান থেকে প্রতিনিয়ত ইয়াবা এনে কক্সবাজার জেলা সহ বিভিন্ন জায়গায় পাচার করছে সে। তার এ কাজে সার্বক্ষনিক সহযোগিতা করে তার মা বোন সহ নিকট আত্বীয় স্বজনরা। আর কেউ সামান্য প্রতিবাদ বা কিছু করলেও ব্যাপক মারধর সহ সম্মানহানী করে। সম্প্রতী আবদুল খালেকের ইয়াবা পাচার করতে গিয়ে কারাগারে আছেন স্থানীয় এক হাফেজ হারুন। এলাকায় এসে তদন্ত করলে বুঝা যাবে বর্তমানে এলাকার প্রায় ৩০/৪০ জন উঠতি বয়সের ছেলে আছে তার ইয়াবা পরিবহণ করে বিনিময়ে তারা বিপুল টাকা পায়। ফলে এলাকার ছেলেরা আর লেখাপড়া না করে এখন ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছে। সচেতন মহলের দাবী র‌্যাব অফিস বিসিকে থাকলে কেন নিয়মিত ৪ টি মামলার আসামী বিসিক এলাকার এই শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়িকে আটক করছেনা ? তাই দ্রæত চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ি আবদুল খালেক সহ তার সিন্ডিকেটকে আইনের আওতায় আনার দাবী জানান এলাকাবাসী।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT