পেকুয়ায় বীর মুক্তিযোদ্ধার জমি জবর দখলের চেষ্টা

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ডিসেম্বর ২, ২০১৯
  • 90 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

পেকুয়া প্রতিনিধি

কক্সবাজারের পেকুয়ায় বীর মুক্তিযোদ্ধা ও ইউনিয়ন আ’লীগের সাবেক সভাপতি নুরুল আজিম চৌধুরীর জমি জবর দখল চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। দূর্বৃত্তরা জমির ঘেরা ও পিলার ভাংচুর করেছে বলে ভুক্তভোগী জানিয়েছে। এঘটনায় দুই পক্ষে উত্তেজনা বিরাজ করলে পেকুয়া থানার এসআই ইয়াকুব ভুইয়ার নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।

সোমবার(২ডিসেম্বর) পেকুয়া সদর ইউনিয়নের ফতেহ আলী মাতবর পাড়ায় এঘটনা ঘটে।

জমির মালিক মৃত দলিলুর রহমান চৌধুরীর পুত্র নুরুল আজিম চৌধুরী বলেন, দেশ স্বাধীণতার সময় সক্রিয় অংশ গ্রহণ করি। তার আগে পাকিস্তানের একনায়ক বাংলাদেশ বিরোধী আইয়ুব খান কর্তৃক মিথ্যা মামলার আসামী হয়েছে। এরপর দীর্ঘ ৫৪ বছর পেকুয়া সদর ইউনিয়ন আ’লীগের দায়িত্ব পালন করি। এখনো বৃদ্ধ বয়সে পেকুয়া উপজেলা আ’লীগের নেতৃবৃন্দের সাথে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করে যাচ্ছি। তারপরও আমার উপর জুলুম নির্যাতন অব্যাহত আছে।

তিনি আরো বলেন, পেকুয়া মৌজার ৭৪৯ খতিয়ানের ১৪৩৯, ১৪৪০ নং দলিল মূলে ১৯৮২ সাল থেকে ১৩ শতক জমি ভোগদখল করে আসছি। ওই জমিতে সেগুন বাগান করেছি। ওই জমি জবর দখল করার চেষ্টা করে আসছিল একই এলাকার অামেরিকা প্রবাসী শফিউল আজম গং। ঘটনার দিন সকালে শফিউল আজম এর নেতৃত্বে তার ভাড়াটি পারভেজ, জেব্রিছ, আরছিস, সোহেল, রুবেল, রাশেদ, খোরশেদ, মানিক ও রাজাখালীর করম আলীসহ আরো কয়েকজন মিলে আমার জমি জবর দখলের চেষ্টা করে। একপর্যায়ে তারা আমার জমি ঘেরা ও পিলার ভেঙে দেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে আসার পর শফিউল আজম বীরদূর্পে তাদের সামনে সীমানার ঘেরা ভাংচুরের কথা অকপটে বলেন।
অথচ ওই জমি নিয়ে আমি চকরিয়া আদালতে ২০০৫ সালে অপর ১৩৮ নং মামলা দায়ের করার পর রায় আমাদের পক্ষে আসে। এরপরও রায়টি আরো পাকাপোক্ত করার জন্য ২০১৬ সালে কক্সবাজার আদালতে অপর আপীল ৬৬ মামলা দায়ের করি। সেই মামলাটি চলমান থাকাবস্থায় তারা জবর দখল চেষ্টা চালালে লিগ্যান নোটিশ প্রদান করি। শফিউল আজম গং মামলার কোন ধরণের জবাব দাখিল না করে সবসময় জোরপূর্বক ভাড়াটে সন্ত্রাসী নিয়ে জবর দখল চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন। এরই ধারাবাহিকতায় তারা আমার রোপিত সেগুন গাছগুলো রাতের আধারে কেটে নেওয়ার হুমকি দিচ্ছে। এবিষয়ে থানায় জবর দখলকারীর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।

পেকুয়া থানার এসআই ইয়াকুব ভূইয়া বলেন, পেকুয়া থানার ওসি স্যারের নির্দেশে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দুই পক্ষকে শান্ত থাকার জন্য বলেছি এবং কাগজপত্র নিয়ে থানার অাসার জন্য বলেছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT