শিরোনাম :
রামু উপজেলা পরিষদের সৌন্দর্য্য নষ্ট করে দোকান বরাদ্ধের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ ঈদগাঁও বটতলী-ইসলামপুর বাজার সড়কের বেহাল দশা আইসক্রিম বিক্রেতা থেকে কোটিপতি রোহিঙ্গা জালাল : নেপথ্যে ইয়াবা ব্যবসা পৌর কাউন্সিলার জামশেদের স্ত্রী‘র ইন্তেকাল : সকাল ১০ টায় জানাযা উখিয়ায় বিদ্যুৎ পৃষ্টে একজনের মৃত্যু কক্সবাজারে বেড়াতে এসে অতিরিক্ত মদপানে চট্টগ্রাম ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু টেকনাফে নৌকা বিদ্রোহীদের জন্য কঠিন শাস্তি অপেক্ষা করছে; সাবরাং পথসভায় মেয়র মুজিব ৮ হাজার পিস ইয়াবা, যৌন উত্তেজক সিরাপ নগদ টাকা সহ আটক ১ মহেশখালী পৌর বিএনপির সভাপতি বহিস্কার,কমিটি বাতিল করোনা:ছয় মাস পর দৈনিক শনাক্ত ৬ শতাংশের কম

পুরাতন রোহিঙ্গাদের নতুন ফুড কার্ড নিতে আপত্তি : নয়াপাড়া ক্যাম্পে বিক্ষোভ

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, আগস্ট ১, ২০২১
  • 91 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

জাবেদ ইকবাল চৌধুরী, কক্সবাজার :টেকনাফ নয়াপাড়া নিবন্ধিত ক্যাম্পের রোহিঙ্গারা বিক্ষোভ দানা বাধছে। তারা রবিবার সকালে চেষ্টা চালায়। এ সময় রোহিঙ্গা নারীরা পুলিশ সদস্যের লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে এপিবিএন সদস্যরা ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে তা ঠেকিয়ে দেয়। এ ঘটনায় ১০ জন এপিবিএন সদস্য ও ৫ জন বিক্ষোভ চেষ্টাকারী রোহিঙ্গা আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া যায়। তবে তাদের নাম পরিচয় বিস্তারিত জানা যায় নি। মূলত তাদের জন্য ইস্যু করা ফুড কার্ড নিয়ে এমন পরিস্থিতি চলছে। ২০১৭ সালে আসা রোহিঙ্গাদের জন্য ইস্যু করা ফুড কার্ড হুবুহু মিল থাকায় পুরাতন রোহিঙ্গারা রেশন নেওয়া বন্ধ রেখেছে।

জানা যায়, ফুড কার্ড হুবুহু হওয়ায় তারা জুলাই মাসের রেশন উত্তোলন করেনি নয়াপাড়া রেজিঃ ক্যাম্পে ১৯৯১-৯২ সালে আসা পুরাতন রোহিঙ্গারা। এখানে ২০১৭ সালে আসা রোহিঙ্গারাও বসবাস করে। নতুনরা আসার পর থেকে পুরাতন রোহিঙ্গাদের মধ্যে মনস্তাত্ত্বিক দ্বন্দ্বও শুরু হয়। পুরাতন রোহিঙ্গারা নিজেরা শরনার্থী মর্যাদায় বাংলাদেশে বসবাস করছে মনে করে। তাদের ধারণা ছিল সংখ্যা কম ও দীর্ঘদিন ধরে অবস্থান করায় বাংলাদেশ এদের নাগরিকত্ব দিয়ে রাখতে পারে অথবা তৃতীয় দেশেও পাঠিয়ে দিতে পারে। কেউ কেউ কৌশলে বাংলাদেশি জাতীয় পরিচয় কার্ড বা জন্ম নিবন্ধন তৈরী করেছে। এমন সময়ে ২০১৭ সালে

নতুন রোহিঙ্গার ঢল নামায় তাদের সেই স্বপ্ন তছনছ হয়ে যায়। এ ছাড়া পুরাতন রোহিঙ্গাদের ফুড কার্ড নতুন রোহিঙ্গাদের ফুডকার্ডের চেয়ে রেশনিং ভিন্নতা ছিল। সব রোহিঙ্গাদের মাঝে সমপরিমাণ খাবার বিতরনের জন্য পুরাতন রোহিঙ্গাদের ফুড কার্ড ফেরত নিয়ে গত মাসে নতুন ফুড কার্ড ইস্যু করা হয়। নতুন ফুড কার্ড অন্যান্য ক্যাম্পের সমসাময়িক (২০১৭ সালে)আগত নতুন রোহিঙ্গাদের ফুড কার্ডের অনুরূপ হওয়ায় নয়াপাড়া রেজিস্ট্রাড ক্যাম্পের পুরাতন রোহিঙ্গারা এখনো নতুন ফুড কার্ড গ্রহণ করেনি। এরফলে গত জুলাই মাসের রেশন উত্তোলন করেনি তারা।

কক্সবাজার ১৬ এপিবিএন অধিনায়ক তারিকুল ইসলাম তারিক জানান, ” ফুড কার্ডকে কেন্দ্র করে ১ আগষ্ট ভোর ৫ ঘটিকার সময় হতে নয়াপাড়া ক্যাম্পের বিভিন্ন স্থানে রোহিঙ্গা নারী জড়ো হতে থাকে ।

এপিবিএন সদস্যরা সর্বোচ্চ ধৈর্য্য সহ উশৃংখল রোহিঙ্গা নারীদের শান্ত করার চেষ্টা করে। রোহিঙ্গা নারীরা এতে শান্ত না হয়ে দফায় দফায় বিভিন্ন স্পটে ইট-পাটকেল মেরে ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করে। এভাবে সকাল ৫ ঘটিকা থেকে দুপুর ১১ ঘটিকা পর্যন্ত রোহিঙ্গা নারীরা উশৃংখলতা করতে থাকে। রোহিঙ্গা নারীরা সকাল ১০ টার দিকে সংঘবদ্ধ হয়ে অতর্কিতে পুলিশের উপর ইট পাটকেল মেরে ধস্তাধস্তি শুরু করে পুলিশের অস্ত্র টানা হেচড়া শুরু করলে পুলিশ জান মাল রক্ষায় ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য ৫ রাউন্ড উপরের দিকে শট গানের গুলি করে। এতে রোহিঙ্গা নারীরা ছত্র ভংগ হয়ে পালিয়ে যায়। ইট পাটকেলের আঘাতে এপিবিএন এর ১০/১২ জন সদস্য আহত হয়। ‘

ক্যাম্পের রোহিঙ্গা নেতা মোহাম্মদ ইসলাম জানান, ‘ নতুন রোহিঙ্গাদের ফুড কার্ড এবং পুরাতন রোহিঙ্গাদের ফুড কার্ড একইরকম হওয়াতে রেজিঃ ক্যাম্পের রোহিঙ্গাদের সমান মর্যাদা দেয়া হয়েছে। তারা কোন ভাবেই এটা মেনে নেবে না।”

অন্য দিকে শরনার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশন (আরআরআরসি) এবং জাতি সংঘ শরনার্থী সংস্থা (UNHCR) কর্তৃপক্ষ ফুড কার্ড ইস্যুতে গৃহীত সিদ্ধান্তে অটল রয়েছে।

টেকনাফ নয়াপাড়া রেজিস্ট্রাড” (ক্যাম্প-২৫) ক্যাম্পের ইনচার্জ (সিআাইসি) উপ-সচিব মোঃ আবদুল হান্নান জানান, ” হয়তো ভূল ধারণা থেকে এমনটি করছে তারা। আমরা এদের সাথে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি। আশা করছি তারা রেশন নেওয়া শুরু করবে। ‘

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতাও কামনা করেন তিনি।কক্সবাজার ১৬ এপিবিএন অধিনায়ক (এসপি) তারিকুল ইসলাম তারিক জানান,”বর্তমানে ক্যাম্পের পুরাতন রোহিঙ্গাদের মধ্যে অসন্তোষ বিরাজ করছে। তারা বিক্ষোভ দানা বাধার চেষ্টা করছে। গত কয়েকদিন তারা এ নিয়ে বিক্ষোভ করার চেষ্টা করলে তাদের এপিবিএন ক্যাম্পে ডেকে মোটিভেশনাল পরামর্শ দিয়ে শান্ত রাখেন এতদিন।উক্ত বিষয়ে আগামীকাল সোমবার (২ আগস্ট) আরআরআরসি, ইউএনএইচসিআর ও রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদের মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা । ক্যাম্প এলাকার সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নয়াপাড়া এপিবিএন তৎপর রয়েছে। ‘

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) কক্সবাজার জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান বলেন, পুরাতন রোহিঙ্গারা অনেকে বাংলাদেশ জাতীয় পরিচয় কার্ড তৈরী করেছে।নতুন ফুড কার্ড গুলো ডিজিটাল হয়ে যাওয়ার বড় ধরনের গড়মিল ধরে পড়তে পারে। এমন আশংকা থেকে নতুন ফুড কার্ড সংগ্রহে অনিহা প্রকাশ করছে তারা। ‘ এ বিষয়ে গভীর পর্যবেক্ষণ ও তদারকি দরকার বলেও মনে করেন তিনি।
খোঁজ নিয়ে আরো জানা যায়, ” উখিয়ার কুতুপালং এবং টেকনাফের নয়াপাড়ায় দু”টি ক্যাম্পে প্রায় ৩৪ হাজার রোহিঙ্গা বসবাস করছে। তারা ১৯৯২-৯২ সালে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গা । ওই সময় আড়াই লক্ষাধিক রোহিঙ্গা এসেছিল বাংলাদেশে। অন্যরা ফেরত গেলও মিয়ানমার প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বন্ধ করে রাখায় এরা তাদের দেশে ফেরত যেতে পারেনি। ওই সময় থেকে বাংলাদেশের দুটি ক্যাম্পে অবস্থান করছে তারা।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT