শিরোনাম :
মাতারবাড়ি প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ হাসিনার জম্মদিন উপলক্ষ্যে ঈদগাঁওতে ১ হাজার ৫শ জনের মাঝে টিকা আইসক্রিম বিক্রেতা থেকে কোটিপতি রোহিঙ্গা জালাল : নেপথ্যে ইয়াবা ব্যবসা সিনহা হত্যা মামলার চতুর্থ দফা সাক্ষ্যগ্রহন শুরু উখিয়ার রোহিঙ্গা ছৈয়দ নুরের এনআইডি বাতিল করতে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ আদালতের নির্দেশ অমান্য করে কলাতলীতে হোটেল দখলে নিতে তৎপর প্রতারক চক্র অবাধ তথ্য প্রবাহ দূর্নীতি প্রতিরোধে সহায়ক ভুমিকা রাখতে পারে : সুজনের আলোচনা সভায় বক্তারা ফাঁদে ফেলে ব্ল্যাকমেইল করতেন বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই নারী শিক্ষক ২০ হাজার ইয়াবা সহ আটক ১ জেলার বিভিন্ন মসজিদ মাদ্রাসায় কর্মরত রোহিঙ্গাদের সরকারি সুযোগ সুবিধা বাতিলের দাবীতে আবেদন

পাহাড়তলীতে অবৈধ বিশুদ্ধ পানির কারখানা : মটরের পানি সরাসরি বোতলে ভরে বিক্রি হচ্ছে

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, জুলাই ১৩, ২০২১
  • 517 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

মাহাবুবুর রহমান.
দীর্ঘ বছর ধরে বিশুদ্ধ পানির নামে চলছে ভয়াবহ প্রতারণা। তারাইধারাবাহিকতায় কক্সবাজার শহরের পাহাড়তলী এলাকায় গড়ে উঠেছে অবৈধ পানির পরিশোধন কারখানা। ডিপমটর থেকে পানি তুলে সরাসরি বোতলে ভরে বিক্রি করা হচ্ছে এসব পানি। আর সেই পানির প্রতিটি জারবিক্রি হচ্ছে ৪০/৫০ টাকায়। কোন প্রকার সরকারি অনুমোদন বা প্রকৃয়াজাতকরণ ছাড়াই এসব পানি বিক্রি হচ্ছে যত্রতত্র। স্থানীয়দের দাবী প্রশাসন এবং লোকচক্ষুকে ফাসি দিতেই মূলত পাহাড়তলী ভেতরে এই পানি তৈরি কারখানা বসানো হয়েছে।
সরজমিনে গিয়ে পাহাড়তলীর ইসলামপুর এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে,এম বি শপ নামের একপি বিশুদ্ধ পানি তৈরি কারখানা স্থাপন করা হয়েছে। যদিও এখনো বেশির ভাগ মেশিন বা অন্যান্য যন্ত্রপানি বসানো হয়নি। তবুও সেই কারখানা থেকে পানি সরবরাহ হচ্ছে প্রতিনিয়ত। আর সেই পানি যাচ্ছে শহরের বেশির ভাগ দোকান,বাসাবাড়ি,অফিস আদালত সহ সব জায়গায়। সেই এম বি শপ কারখানায় গিয়ে দেখা গেছে। কয়েকটি ডিপ মটর থেকে পানি তুলে সরাসরি বোতলে ভরে বিক্রির উদ্দ্যেশে মজুদ করা হচ্ছে। আবার কিছুক্ষণ পরে গাড়ি এসে নিয়ে যাচ্ছে সে সব পানি বোতল। এতে বোতলের গায়ে বিশুদ্ধ পানি লেখা থাকলেও বাস্তবে সাধারণ পানিই পাচ্ছে গ্রাহকরা। যা অনেক বড় প্রতারণা। স্থানীয় কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে,অল্প কিছুদিন আগে এখানে পানির কারখানাটি স্থাপন করা হয়েছে তবে এটার বৈধতা বা সরকারি অনুমোদন কি সেটা আমরা জানিনা। তবে এই কারখানার গাড়ী প্রতিনিয়ত আসা যাওয়ার কারনে রাস্তার বেহাল দশা হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এ সময় কারখানায় নিয়োজিত কর্মচারীরা জানান,আলমগীর নামের একজন এই কারখানার মালিক তিনি কাগজ পত্র সব সংগ্রহ করছেন এখনো পুরুপুরি তৈরি হয়নি। তাহলে কেন পানির বোতল বাজারজাত করা হচ্ছে সেটা প্রশ্নের জবাবে তারা বলেন,মানুষের চাহিদা আছে তাই কিছু কিছু বিক্রি করছি। না হলে হঠাৎ কাস্টমার পাওয়া যাবেনা। তাছাড়া শুধু আমাদের টা কেন শহরের বেশির ভাগ পানির পরিশোধনাগার গুলোর কোন একই অবস্থা।

এ ব্যপারে মোবাইলে বি কে আলমগীর জানান,এখনো পরিপূর্ন কাগজ পত্র হয়নি। আমরা প্রাথমিক পর্যায়ে কাজ চালাচ্ছে। আর ইতি মধ্যে অনেক সাংবাদিক এসে সমস্যা শুরু করেছে। এ ব্যপারে সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি নু এ মং মারমা বলেন,যে বিশুদ্ধ পানির কারখানার কথা বলছেন সেটা আমার জানা নেই। খোঁজ নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT