দাম না পেয়ে হতাশ চাষীরা : মাঠে যাচ্ছেনা অনেকে

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, এপ্রিল ২১, ২০২০
  • 114 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

মাহাবুবুর রহমান.
কক্সবাজারে উৎপাদিক সবজির ন্যায্য দাম পাচ্ছে না কৃষকরা। এতে চরম হতাশা বিরাজ করছে কৃষকদের মাঝে তাই অনেকে নতুন করে আর মাঠে নামতে চাইছে না। এতে আগামী মৌসুমে সবজি সহ বেশ কিছু নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের খাদ্য সংকটে পড়া অথবা দাম বাড়ার আশংকা করছে বিশেষজ্ঞরা।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সূত্রে জানা গেছে,জেলায় বতর্মান মৌসুমে শীতকালিন সবজি উৎপাদন হয়েছে ২ লাখ ৬৩ হাজার৩৭৫ মেঃটন,অন্যান্য রবি ফসল উৎপাদন হয়েছে ৭৫ হাজার ৭৬৬ মেঃটন, আর এ সব সবজি আবাদ হয়েছে ৪২ হাজার একর জমিতে। ্ছাড়া ইতি মধ্যে বুরোধান বেশির ভাগ কৃষকের ঘরে উঠে গেছে। তবে শীতকানি সবজি সহ অন্যান্য শাক সবজি গুলো বাজারে ঠিক মত বিক্রি করতে না পারায় বেশির ভাগ চাষীরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোঃ আবুল কাশেম বলেন,মূলত যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়ায় মাঠ পর্যায়ের কৃষক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এতে বেশির ভাগ চাষীই ন্যায্য মূল্য পায়নি। তবে সরকারের পক্ষ থেকে ইতি মধ্যে কৃষকদের জন্য বেশ কিছু প্রণোদনা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে যেমন জেলায় প্রায় ৩ হাজার কৃষক প্রতি বিঘা জমির জন্য ৫ কেজি বীজ এবং ৩০ কেজি সার পাবে এছাড়া স্থানীয় ভাবে আরো বেশ কিছু প্রণোদনা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এদিকে উৎপাদিক সবজির ন্যায্য মূল্য না পেয়ে চরম হতাশ কৃষক আর মাঠে যাচ্ছেনা বলে জানা গেছে,এ ব্যপারে সদর উপজেলার পিএমখালী ইউনিয়নের ঘাটকুলিয়া পাড়ার শহিদুল ইসলাম বাবুল বলেণ,আমি কাচাঁ মরিচ শশা,টমেটো,শীমবিচির দানা সহ অনেক কিছু চাষ করেছিলাম। প্রথম দিকে কিছু বিক্রি করতে পারলেও শেষের দিকে কাচাঁ মরিচ বিক্রি করেছি ১৮ টাকায়,টমোটো৭ টাকায় যা আমার উৎপাদন খরচও উঠেনি। মূলত আমি সবজি বাজারে নিয়ে যেতে না পারার কারনে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। আবার দেখা যাচ্ছে বাজারে নিয়ে গেলেও সেখানে গ্রাহক নেই সব মিলিয়ে এবার বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। তাই এখন আর মাঠে যাচ্ছিনা। রামু শ্রীকুল এলাকার চাষী বিভুতী বড়–য়া বলেন,আমার অনেক সবজি মাঠেই নষ্ট হয়ে গেছে মূলত আমি দেরীতে চাষ করেছিলাম তাই ফলনও হয়েছে দেরীতে তাই মারাত্বক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। যেহেতু দেশের করোনা পরিস্থিতি কখন ভাল হয় তার কোন হিসাবে নেই তার এখন আর মাঠে কোন সবজি চাষ করতে যাচ্ছিনা মাঠ খালী থাকুক কিছু দিন। এদিকে জেলার সচেতন মহলের দাবী সরকারকে অন্যান্য খাতের চেয়ে কৃষিখাতে বেশি নজর দিতে হবে। কারন মানুষের প্রধান হচ্ছে খাদ্য সেই খাদ্যই যদি সংকট হয় তাহলে বিশাল সমস্যায় পড়বে পুরু জাতী। আর বিদেশ থেকে এনে কোন দিন দেশের খাদ্য সংকট পুরন করা সম্ভব না। তাই জরুরী ভিত্তিতে কৃষকদের সহায়তা করা দরকার

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT