শিরোনাম :

তোতকখালীতে আওয়ামী পরিবারকে ধ্বংস করতে মৌলবাদীদের হুমকির অভিযোগ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শনিবার, জানুয়ারী ১৬, ২০২১
  • 160 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

গত ১২/০১/২০২১ইং তারিখ আপনার পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। উক্ত শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত হয়। তাজউদ্দিন তাজমহল মুক্তিযোদ্ধের সময় তার জন্মই হয় নি । কে সেই মুক্তিযোদ্ধা ? মুক্তিযুদ্ধের সার্টিফিকেট আছে কি না ? তার বাবা মৃত কলিম উল্লাহ প্রকাশ কালুকে যদি মুক্তিযোদ্ধা বলে দাবী করে তা হবে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি করার একটা জঘন্য ষড়যন্ত্র ও পরিকল্পনার অংশ বিশেষ । তার বাবা ১৯৭০ ইং সনের শেষের দিকে তোতকখালী এলাকার জমিদার মোহাম্মদ মিয়া চৌধুরীকে প্রকাশ্য দিবালোকে গুলি করে হত্যা করার পর গ্রেফতার হয়ে প্রায় দুই বৎসর কক্সবাজার কারাগারে বন্দি ছিলেন । যে দিন ভারতীয় মিত্র বাহিনীর যুদ্ধ বিমান কক্সবাজার বিমান বন্দর আক্রমণ করে ধংসস্তুপে পরিণত করে এর পরদিনই সকাল বেলায় কয়েদিদের খাবার সরবরাহ করার জন্য কারারক্ষী কর্তৃক লোহার গেইট খোলা হলে সকল কয়েদিরা জোরপূর্বক বের হয়ে যায় । তাজউদ্দিনের বাবা যুদ্ধকালীন সময়ে কারাগারেই ছিলেন । তিনি কারাগারের চার দেওয়ালের ভিতরে মুক্তিযুদ্ধ দেখেননি । তাজমহল মুক্তিযোদ্ধা পরিবার দাবী করা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করার পরিকল্পনার অংশ বিশেষ । তার বাবা কোন সেক্টরে কোথায় যুদ্ধ করেছিলেন ? সেক্টর কমান্ডার কে ছিলেন ? এ ধরণের পরিকল্পিত মুক্তিযোদ্ধার পরিবার দাবী করায় তার বিরুদ্ধে ইতিহাস বিকৃতির পরিকল্পনার করার জন্য মামলা করা হবে। প্রকৃত বিষয় হল-তাজউদ্দিন তাজমহল একজন দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী বেআইনী অস্ত্রধারী ও সরকারী পাহাড় কেটেবন ধ্বংস করায় পরিবেশ আইনে মামলাসহ একাধিক জঘন্য অপরাধে অভিযুক্ত একজন পেশাদার চাঁদাবাজ । তার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে এলাকার কেউ ভয়ে মুখ খুলেনা । মুফতি আসাদ আবদুল্লাহ একজন ধর্মপ্রাণ মুসলমান হিসাবে সাধারণ জনগনের প্রতি তার জুলুম নির্যাতনের প্রতিবাদ করার আক্রোসে ক্ষিপ্ত হয়ে তোতকখালী সিকদার পাড়ায় হাফেজিয়া ইউনুছিয়া রাহমানিয়া মাদ্রাসায় গত ০৪/০১/২১ইং তারিখ রাত ১০.০০ ঘটিকায় মাদ্রাসায় দলীয় সন্ত্রাসীসহ বে-আইনী অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে একভয়াবহ ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। ফলে মাদ্রাসায় অবস্থানরত হেফজপড়–য়া ও অন্যান্য ছাত্র এবং শিক্ষকগনসহ প্রতিবেশীগন ভয়ানক আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়ে। কোমলমতি শিশুরা প্রাণের ভয়ে পুকুরে ঝাপদিয়ে আত্মরক্ষা করে। মুফতি আসাদ আবদুল্লাহ কে বেদন মারধর করতঃ কোদাল দিয়ে মাদ্রাসার টুল,টেবিল কাটিয়া ফেলে এবং ধর্মীয় কিতাব সমূহ ছিরিয়া তছনছ করে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করতঃ লুঠতরাজ চলায় । এব্যাপারে তাজমহলের বিরুদ্ধে কক্সবাজার মডেল থানা মামলা নং-১৭ জি আর -১৭ তারিখ-০৮/০১/০২১ইং মামলা হয়েছে । উক্ত মামলা হতে স্কীনসেভ করার জন্য কতেক মিথ্যা ও বানোয়াট কাহিনী সাজাইয়া আপনার পত্রিকায় সংবাদ দিয়েছে ্। তার এই জঘন্য কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে এলাকার হাজার হাজার জনগণ প্রতিবাদে মুখরিত হয়ে প্রতিবাদ সভা ও সাংবদিক সম্মেলন করেন ।উক্তসাংবাদিক সম্মেলনে ১০ জন সম্মানিত সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন । যাহা সরাসরি ঈই২৪ ঞঠ তে দেখানো হয়েছে এবং কক্সবাজার থেকে প্রকাশিত ১০টি পত্রিকায় সংবাদ ছাপানো হয়েছে । তাজমহল কর্তৃক মিথ্যা ও বানোয়াট সংবাদ দেওয়ায় আমি ঘৃণাভরে তার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি ।

এই প্রতিবাদটি আপনার পত্রিকায় ছাপানোর জন্য বিশেষ ভাবে অনুরোধ করা হলো।

নিবেদক
মুফতি মোঃ আসাদ আবদুল্লাহ

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT