তাওবা ও সৎ জীবন যাপনের মাধ্যমে মানবগোষ্ঠী গজব থেকে রক্ষা পেতে পারে, ড. আ ফ ম খালিদ হোসেন

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, মার্চ ১৩, ২০২০
  • 144 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক, রামুু
বিদগ্ধ ইসলামী শিক্ষাবিদ, চট্টগ্রাম ওমরগণি এম.ই.এস বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ড. আ.ফ.ম খালিদ হোসেন বলেছেন, পৃথিবীর দেশে দেশে অনাচার, পাপাচার, দুর্বৃত্তপনা ও খোদাদ্রোহিতা সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছে। ফলে আল্লাহ তায়ালার সন্তুষ্টির পরিবর্তে অসন্তুষ্টির মাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে। অতীতে সীমালঙ্ঘন, নাফরমানি, নবী-রাসূলদের প্রতি ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণে অসন্তুষ্ট হয়ে আল্লাহ তায়ালা বহু জাতিগোষ্ঠীকে ধ্বংস করে দিয়েছেন। সুতরাং ইতিহাসের পথ ধরে বিপর্যয় ও গজব নামতে বাধ্য। সা¤প্রতিককালে বিশ্বজুড়ে নোভেল করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব, এটা নিঃসন্দেহে প্রাকৃতিক বিপর্যয় ও আল্লাহর গজব। এ রকম বিপর্যয় ও ধ্বংস মানুষের অপকর্মের কুফল। আল্লাহ তায়ালার কাছে তাওবা, ক্ষমা প্রার্থনা, মানবিকতার উজ্জীবন, কল্যাণকর জীবন যাপনের অঙ্গীকার করে ভবিষ্যতের সম্ভাব্য বিপর্যয় ও গজব থেকে মানবগোষ্ঠী রক্ষা পেতে পারে।
তিনি বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) কক্সবাজার শহরের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাকেন্দ্র শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউটের শাখা প্রতিষ্ঠান হযরত ফাতিমাতুজ জুহরা (রা.)আদর্শ নুরানী ও হিফজ মাদ্রাসার তৃতীয় বার্ষিক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।
বিশিষ্ট লেখক, মাসিক আত্-তাওহীদ সম্পাদক ড. খালিদ হোসেন আরো বলেন, শিশুদের শৈশবকালেই কুরআনের তালীম দেয়ার ব্যবস্থা করলে পরিণত বয়সে পথহারা হওয়ার সম্ভাবনা কমে যাবে। এ লক্ষ্যে শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউট কর্তৃপক্ষ নুরানী ও হিফজ মাদ্রাসা চালু করে ব্যতিক্রমী ও যুগান্তকারী দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তিনি মুসলিম উম্মাহর চরম সঙ্কট উত্তরণে ওলামায়ে কেরামের ঐক্যবদ্ধ ভূমিকার গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন, আলিয়া ও কওমি ঘরানার ওলামা-মাশায়েখের মধ্যে যে পারস্পরিক শ্রদ্ধা, ভালোবাসা ও সহমর্মিতার ঐতিহ্য রয়েছে তা ধরে রাখতে হবে। সংযমী আচরণের মাধ্যমে একে অপরের কাছে আসার সুযোগ আছে। ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে যেন ফাটল না ধরে, এ ব্যাপারে উভয় ঘরানার মুরব্বিদের সচেতন থাকার প্রয়োজনীয়তা সবচেয়ে বেশি। ঐক্যই শক্তির উৎস। তাই স্বার্থান্বেষী মহল ওলামায়েকেরামের মধ্যে অনৈক্য তৈরি করে ইসলামের ক্ষতি সাধনে তৎপর রয়েছে। এসব চক্রান্তের বিরুদ্ধে সজাগ থাকতে হবে। উদারতা সংহতি, স¤প্রীতির বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়ে মুসলিম উম্মাহ শীসাঢালা প্রাচীরের ন্যায় ঐক্যবদ্ধ হতে পারলে বিশ্ববুকে কালেমার পতাকা উড্ডীন হতে সময় লাগবেনা ইনশাআল্লাহ।
শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মাষ্টার মুহাম্মদ শফিকুল হকের সার্বিক তত্ত¡াবধানে ইনস্টিটিউট প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত দিনব্যাপী সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, সৌদি আরব রিয়াদস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তা ড. মাওলানা সাদিক হোসাইন, জামিয়া আহলিয়া দারুল উলুম মঈনুল ইসলামের সাবেক কেরাত বিভাগীয় প্রধান মাওলানা কারী জহিরুল হক। বিশেষ বক্তা ছিলেন, চকরিয়া মারকাযুদ দাওয়াহ ওয়াল এরশাদের পরিচালক, চট্টগ্রাম আগ্রাবাদ জামে মসজিদের খতীব মাওলানা মোস্তফা নূরী, জামিয়া এমদাদিয়া আজিজুল উলুম পোকখালীর মুহাদ্দিস ও তারাবানিয়ারছরা জামে মসজিদের খতীব মাওলানা অলি আহমদ, শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউট জামে মসজিদের খতীব, বিশিষ্ট লেখক মাওলানা হাফেজ মুহাম্মদ আবুল মঞ্জুর, পেশ ইমাম মাওলানা আবছার কামাল প্রমুখ।
ইনস্টিটিউটের সচিব হাফেজ হেলাল উদ্দীনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বিভিন্ন অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন, শহীদ তিতুমীর ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মাষ্টার মুহাম্মদ শফিকুল হক, লিংকরোড মাশরাফিয়া তাহফিজুল কুরআন মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা হাফেজ ছালামতুল্লাহ, ইসলামী শিক্ষা গবেষক মমতাজুল ইসলাম, মোহাম্মদিয়া লাইব্রেরীর সত্ত¡াধিকারী মাওলানা ওমর ফারুক, দারুল কুরআন কমপ্লেক্সের সহকারী পরিচালক মাওলানা কারী সাইফুল্লাহ কাসেমী। এছাড়াও ইসলামী শিক্ষানুরাগী গোলাম কিবরিয়া, হাফেজ তোফাইল উদ্দিন চৌধুরী, প্রবীণ আলেমেদ্বীন মাওলানা হাফেজ মাশকুর আহমদসহ বরেণ্য ওলামায়েকেরাম ও ইসলামী চিন্তাবিদগণ সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। সভায় বক্তারা ইসলামী জীবনধারা ও মুসলিম উম্মাহর সমকালীন সঙ্কট ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা করেন।
বার্ষিক এ মাহফিল উপলক্ষ্য সদর উপজেলাধীন বিভিন্ন হিফজখানার ছাত্রদের নিয়ে হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতাও অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিজয়ীদের আনুষ্ঠানিকভাবে পুরস্কৃত করা হয়। প্রতিযোগিতায় বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন, ঈদগাও তাহসীনুল কুরআন মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মাওলানা কারী শফিউল্লাহ, আল-জামিয়া আল-ইসলামিয়া পটিয়ার হিফজ বিভাগের শিক্ষক মাওলানা হাফেজ আজিজুল হক, তরুণ আলিম মাওলানা হাফেজ মুফতি মুহসিন উদ্দিন।
সভায় এ হিফজখানা থেকে সদ্য হিফজ সমাপ্তকারী ছাত্রদের দস্তারে ফযীলত (পাগড়ি) প্রদান করা হয়। সভায় হিফজ বিভাগ ও নুরানীর কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের তিলাওয়াত, হাদীস শরীফ, কালেমা, মাসআলা পরিবেশন ও হস্তলিপি প্রদর্শনীতে অতিথিবৃন্দ সন্তোষ প্রকাশ করেন। মহান আল্লাহর দরবারে বিশেষ মুনাজাতের মাধ্যমে সভা সমাপ্ত হয়

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT