ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশু ও বয়স্করা

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, অক্টোবর ৫, ২০২০
  • 160 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

আবদুল্লাহ মনির, টেকনাফ
শীত শুরু হওয়ার আগেই টেকনাফ সর্দি-কাশি ও জ্বরসহ ঠান্ডাজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রানÍ হচ্ছে
শিশু ও বয়স্করা। বিশেষ করে শিশুদের নিউমোনিয়া, ব্রঙ্কিউলাইটিছসহ শ^াসজনিত রোগে আক্রান্তের
সংখ্যা বাড়ছে। এ পরিস্থিতিতে শিশুদের বাড়তি পরিচর্যার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এছাড়াও
বয়স্করাও নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।সরেজমিন গিয়েদেখা যায,উপজেলা স্বাস্হ্য কমপ্লেক্স,সহ কয়েকটি প্রাইভেট হাসপাতাল ঘুরে দেখা যায়- জ্বর, সর্দি, কাশি, নিউমোনিয়া, ব্রংকাইটিস বা শ^াসকষ্ট, অ্যাজমা (হাঁপানি), সাইনোসাইটিস এবং টনসিলের সমস্যা নিয়ে শিশুরা ভর্তি হচ্ছে। এছাড়া হাসপাতালের বহি:র্বিভাগে টাইফয়েড, প্যারাটাইফয়েড, জন্ডিস, সাধারণ আমাশয়, রক্ত আমাশয় রোগীর সংখ্যাও আগের চেয়ে বাড়ছে।টেকনাফ সাবরাং থেকে সাড়ে ৪ বছরের শিশু জমিলা নিয়ে মা আমিনা হাসপাতালে এসেছেন। বহিঃর্বিভাগে বাচ্চাকে কোলে নিয়ে বসেছিলেন তিনি। তিনি বলেন, দুই দিন আগে তার ঠান্ডা লেগেছিল।
নাক দিয়ে পানি পড়ছিল। বুকে সাই সাই শব্দও হচ্ছে। সকালবেলা দু-তিনবার পাতলা পায়খানা
হয়েছে। সঙ্গে বমিও করেছে। তারপর হাসপাতালে নিয়ে এসেছি।টেকনাফ সদর ইউনিয়নের প্রবাসী নুরুল আমিনের ৮ বছর বয়সি শিশু পুত্র ফাহিম সর্দিজ্বর,কাশিতে আক্রান্ত হওয়ার সাথে টেকনাফ হাসপাতালে কর্মরত ডাক্তার প্রনয় রুদ্র কাছে চিকিৎসা সেবা নিতে গিয়ে প্রায় শতাধিন বয়স্ক নারী-পুরুষ, শিশু রোগীরা চিকিৎসা নিতে বসে আছে।তাদের মধ্যেও বেশীর ভাগ রোগী ঠান্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, হঠাৎ বৃষ্টির পর থেকে আবহাওয়া দ্রæত ঠান্ডা হয়ে যাচ্ছে। এতে হাসপাতালে ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত শিশুরা চিকিৎসা নিতে আসছে। গতবছরের তুলনায় এবার রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। তবে এতে আতঙ্কিত হবার কিছুই নেই।উপজেলা স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সলে মেডিলেক অফিসার প্রণয় রুদ্র বলছেন, আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে ভাইরাসের সংক্রমণ দ্রæত বাড়ছে। তাপমাত্রার তারতম্যের কারণে সর্দি-কাশি, জ্বরসহ অন্যান্য রোগ হচ্ছে। তাছাড় শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা খুবই কম। বদলে যাওয়া আবহাওয়ায়, শিশুরা তাই খুব সহজেই বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়। অন্যদিকে এ সময়ে বাতাসে ধুলোবালির পরিমাণ বেড়ে যায়, এরই সাথে রোগজীবাণুর সংক্রমণও বাড়তে থাকে। এই পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে শিশুরা নিউমোনিয়া, ব্রঙ্কাইটিস, ডায়রিয়া, ঠান্ডা জ্বর, কাশি প্রভৃতিতে আক্রান্ত হচ্ছে।টেকনাফ উপজেলা স্বাস্হ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার টিটু চন্দ্র শীল বলেন, আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে জ্বর সর্দি কাশি সহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত রোগির সংখ্যা রেড়ে যাওয়ার কারনে কর্মরত ডাক্তাররা চিকিৎসা সেবা দিতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছে। তার পরও প্রতিদিন প্রায় ৫ শতাধিক রোগীকে চিকিৎসা সেবা দিতে সক্ষম হচ্ছি ।তিনি আরোও বলেন, এ জন্য বিশেষ করে মাকে সতর্ক থাকতে হবে। পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার
পাশাপাশি শিশুর খাওয়ার স্যালাইন ও স্বাভাবিক খাওয়ার ঠিক রাখতে হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT