শিরোনাম :
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চোরাই পণ্যের ব্যবসা জমজমাট কক্সবাজারের দুই পৌরসভা ও ১৪ ইউপিতে ভোট ২০ সেপ্টেম্বর রামু উপজেলা পরিষদের সৌন্দর্য্য নষ্ট করে দোকান বরাদ্ধের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ ঈদগাঁও বটতলী-ইসলামপুর বাজার সড়কের বেহাল দশা আইসক্রিম বিক্রেতা থেকে কোটিপতি রোহিঙ্গা জালাল : নেপথ্যে ইয়াবা ব্যবসা পৌর কাউন্সিলার জামশেদের স্ত্রী‘র ইন্তেকাল : সকাল ১০ টায় জানাযা উখিয়ায় বিদ্যুৎ পৃষ্টে একজনের মৃত্যু কক্সবাজারে বেড়াতে এসে অতিরিক্ত মদপানে চট্টগ্রাম ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু টেকনাফে নৌকা বিদ্রোহীদের জন্য কঠিন শাস্তি অপেক্ষা করছে; সাবরাং পথসভায় মেয়র মুজিব ৮ হাজার পিস ইয়াবা, যৌন উত্তেজক সিরাপ নগদ টাকা সহ আটক ১

জেলায় মাথা গোঁজার ঠাই হচ্ছে ৮৬৫ পরিবারের

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, জানুয়ারী ২২, ২০২১
  • 141 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

আজিম নিহাদ

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে কক্সবাজার জেলায় জমিসহ নতুন ঘর পাচ্ছে ৮৬৫ হতদরিদ্র গৃহহীন পরিবার। এরমধ্যে আগামী শনিবার উপহারের ঘরের চাবি বুঝে নেওয়ার মধ্য দিয়ে স্বপ্নপূরণ হতে যাচ্ছে ৩০৩ পরিবারের।
২৩ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে উদ্বোধনের প্রতিটি উপজেলায় আনুষ্ঠানিকভাবে ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হবে। বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) দুপুরে আনুষ্ঠানিক গৃহ প্রদান উপলক্ষে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ এ তথ্য জানান।
প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, ‘মুজিববর্ষে একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে ন’ প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার এই নির্দেশনা বাস্তবায়নে জেলায় প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে ৮৬৫ গৃহহীনকে জমিসহ বাড়ি উপহার দেয়া হচ্ছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে ২ শতাংশ জমি ও ১৪ কোটি ৭৯ লাখ ১৪ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে ৩০৩ টি বাড়ি প্রস্তুত হয়েছে। দুই কক্ষ বিশিষ্ট প্রতিটি বাড়ির জন্য একটি শোবার ঘর, একটি রান্নার ঘর ও করিডোরসহ বাথরুম নির্মাণে ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা।

 

শনিবার প্রধানমন্ত্রী আনুষ্ঠানিকভাবে বাড়িগুলো গৃহহীন পরিবার কে হস্তান্তর করবেন। পর্যায়ক্রমে জেলার ১২ হাজার ১২৮ গৃহহীন পাবে জমিসহ নতুন ঘর। প্রেস ব্রিফিংয়ে আরও জানানো হয়, কক্সবাজার সদর উপজেলায় ১ম ও ২য় ধাপে মোট ৯৬টি ঘরের বরাদ্দ পাওয়া গেছে। এরমধ্যে নির্মিত হয়েছে ২০টি। চকরিয়া উপজেলায় ১৮০টি বরাদ্দের বিপরীতে ৮০টি ঘরের নির্মাণ কাজ, পেকুয়া উপজেলায় ৪৫টি বরাদ্দের বিপরীতে ১৪টি ঘরের নির্মাণ কাজ, রামু উপজেলায় ১৭৫টি বরাদ্দের বিপরীতে ৬০টি গরের নির্মাণ কাজ, মহেশখালী উপজেলায় ২০টি বরাদ্দের বিপরীতে ২০টি ঘরের নির্মান কাজ, উখিয়া উপজেলায় ১০০টি বরাদ্দের বিপরীতে ৩৫টি ঘরের নির্মাণ কাজ, টেকনাফ উপজেলায় ২২৯টি বরাদ্দের বিপরীতে ৬০টি ঘরের নির্মাণ কাজ এবং কুতুবদিয়া উপজেলায় ২০টি বরাদ্দের বিপরীতে ১৪টি ঘরের নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হয়েছে।
যেসব বাড়ির নির্মাণ কাজ ইতোমধ্যে সমাপ্ত হয়েছে তা শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপকারভোগীদের মাঝে নির্মিত বাড়িগুলো হস্তান্তর করবেন।
কক্সবাজার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আমিন আল পারভেজ বলেন, কক্সবাজারে গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবার রয়েছে ১২ হাজার ১২৮ টি। এরমধ্যে মুজিববর্ষে পাকা ঘর পাচ্ছে ৮৬৫ পরিবার। উপকারভোগীদের দলিল, খতিয়ান, চাবি, সনদ সবকিছু বাড়ি হস্তান্তরের সঙ্গে সঙ্গে বুঝিয়ে দেওয়া হবে।
মো. আমিন আল পােেরভর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত প্রেস ব্রিফিংয়ে বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক শ্রাবস্তী রায়, সাবেক সাংসদ জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি অধ্যাপিকা এথিন রাখাইন, উখিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী, কক্সবাজার সদর উপজেলা চেয়ারম্যান কায়সারুল হক জুয়েল ও মহেশখালী উপজেলা চেয়ারম্যান শরীফ বাদশা।
এসময় উপস্থিত ছিলেন কক্সবাজার গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জহির উদ্দিন আহমদ, এলজিইডি নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আনিসুর রহমান, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী ঋত্বিক চৌধুরী, রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর মো. মোস্তফা জাবেদ কায়সার ও ডিআরআরও মো. জাহাঙ্গীর আলম।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT