শিরোনাম :
উখিয়ার রোহিঙ্গা ছৈয়দ নুরের এনআইডি বাতিল করতে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ আদালতের নির্দেশ অমান্য করে কলাতলীতে হোটেল দখলে নিতে তৎপর প্রতারক চক্র অবাধ তথ্য প্রবাহ দূর্নীতি প্রতিরোধে সহায়ক ভুমিকা রাখতে পারে : সুজনের আলোচনা সভায় বক্তারা ফাঁদে ফেলে ব্ল্যাকমেইল করতেন বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই নারী শিক্ষক ২০ হাজার ইয়াবা সহ আটক ১ জেলার বিভিন্ন মসজিদ মাদ্রাসায় কর্মরত রোহিঙ্গাদের সরকারি সুযোগ সুবিধা বাতিলের দাবীতে আবেদন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীর হাতে অপহৃত ৩ বাংলাদেশীকে উদ্ধার করেছে র‌্যাব নাফ নদীতে অজ্ঞাত শিশুর লাশ উদ্ধার ১০ হাজার ইয়াবা সহ আটক ২ আইনজীবি হলেন স্বামী স্ত্রী জসিম উদ্দিন ও মর্জিনা আক্তার

চকরিয়ার গরুচোর সিন্ডিকেটের পরিকল্পনা ফাঁস করলো কায়েস

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, জুন ২৫, ২০২১
  • 278 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

কক্স৭১
চট্টগ্রাম-কক্সবাজার ও পাশ্ববর্তী বান্দরবান জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে গরু-মহিষ ও ছাগল চুরি বহুল আলোচিত নবী হোসেনের অবৈধ গোপন পরিকল্পনা ফাঁস করলো তারই ব্যক্তিগত পিএস কায়েস। বৃহস্পতবিার চকরিয়ায় এক সাংবাদিক সম্মেলনে বেশকিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য ফাঁস করেন তিনি।
চকরিয়া উপজেলার সাহাবিল ইউনিয়নের কোরালখালী গ্রামের বাসিন্দা ও নবী হোসেনের সাবেক একান্ত পিএস মোহাম্মদ কায়েস বৃহস্পতিবার বিকেলে চকরিয়া অফিসে সাংবাদিক সম্মেলন করে করেন।
সাংবাদিক সম্মেলনে কায়েস দাবী করেন, কোরালখালী গ্রামের বাসিন্দা মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে নবী হোসেন ওরফে নবী চৌধুরী ওরফে নইব্যা একজন পেশাদার চোর ও সন্ত্রাসী। দীর্ঘদিন ধরে নবীর নেতৃত্বেই চলে আসছে গরু,মহিষ ছাগল চুরিসহ বিভিন্ন বড়ধরণের অপরাধ কর্মকান্ড।
সম্প্রতি নবী হোসেন ওরফে নইব্যার স্থানীয় প্রতিপক্ষ স্থানীয় যুবনেতা মো: আলামগীর ও কামাল উদ্দিনকে অবৈধ অস্ত্র দিয়ে ফাঁসাতে ব্যবহার করতে চায় তার পিএস মো: কায়েসকে। কিন্তু কায়েস এতে রাজী না হওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে নবী হোসেন ওরফে নইব্যা। এরপর থেকে কায়েস নবীর সাথে সম্পর্ক নষ্ট করে চলে আসলে প্রতিশোধ পরায়ন হয়ে উঠে নবী হোসেন।
মো: কায়েস দাবী করেন, ইতোপূর্বে তাকে একাধিকবার হত্যার পরিকল্পনা করেছে। সর্বশেষ ২৪ জুন বৃহস্পতিবার বিকেলে নবীর নেতৃত্বে একদল স্বশস্ত্র লোক প্রকাশ্যে হত্যার উদ্দেশ্যে কায়েসকে স্থানীয় রামপুরস্থ জলদাশপাড়া থেকে তাড়া করে ইউনিয়ন পরিষদ পর্যন্ত নিয়ে আসে। কায়েস আরও জানান, স্থানীয় মো: হানিফ নামের একব্যক্তি নবী হোসেনের বাড়িতে গরু জবাইয়ের কাজ করতো, নবীর পরিকল্পনায় গত একমাস পূর্বে ওই হানিফকে হত্যা করে উল্টো হানিফের পরিবারের উপর চাপিয়ে দেয় নবী। ২০১৭ সালে সাহারিবল ইউনিয়নের জনৈক ফরহাদও থাকতো নবী হোসেন ওরফে নইব্যার সাথে। গরুচুরি করতে গিয়ে পুলিশের সাথে গুলোগুলিতে মারা যায় ওই ফরহাদ। ২০১৮ সালে কোরালখালী গ্রামের জসিমের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম থাকতো নবী হোসেনের সাথে, গরুচুরি করতে গিয়ে পেকুয়ায় গণপিঠুনির শিকার হয়ে রাস্তা পড়ে গেলে নবীর ভাই বাদল গাড়ি চাপা দিয়ে পালিয়ে আসে। এতে ঘটস্থলেই মারা যায় জাহাঙ্গীর। নবীর সাবেক এই ব্যক্তিগত সহকারি মো: কায়েস দৃঢ়তার সাথে আরও জানান, নবী হোসেন ওরফে নইব্যাচোরা বর্তমানেও দক্ষিণ চট্টগ্রামের গরু-মহিষ চুরি সিন্ডিকেটের প্রধান। বর্তমানেও একই কাজে লিপ্ত রয়েছে বলে তথ্য ফাঁস করেন কায়েস। তিনি এ ব্যাপারে নিজের জীবনের নিরাপত্তা ও নবী হোসেনের অপকর্মের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। ##

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT