খুটাখালী ফান্ডাছড়ি ছড়াখালে অবৈধ বেড়িঁবাধঃমাছচাষ ও বালু উত্তোলন চাষাবাদের ক্ষতি

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, জানুয়ারী ৫, ২০২০
  • 58 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিনিধি, চকরিয়া :
কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের ফুলছড়ি রেঞ্জের অধীন, চকরিয়া উপজেলাস্থ খুটাখালী ও ফুলছড়ি বনবিটের সীমানার মধ্যকার স্থানের উপর দিয়ে আসা প্রবাহমান খুটাখালী ফান্ডা ছড়ি ছড়াখালে বাঁধ নির্মান চলছে। এই বাধঁ দিয়ে মৌসুমি মৎস্য চাষ ও বালু উত্তোলনের কারণে নিম্নে এলাকার হাজার একর জমির চাষাবাদের ব্যাপক ক্ষতির আশংকা করছে স্থানীয় লোকজন।
স্থানীয় লোকজন অভিযোগ করছে, স্থানীয় কিছু ব্যক্তি সরকার দলের লোক ও বনজায়গীরদার পরিচয়ে ছড়া খালে বাঁধ নির্মাণ করছে। এসব কাজে খুটাখালী বনবিট কর্মকর্তা রেজাউল করিম ও ফুলছড়ি বনবিট কর্মকর্তা আকরাম ও রেঞ্জ কর্মকর্তা ছৈয়দ আবু জাকরিয়া প্রত্যক্ষ সহযোগিতা রয়েছে বলে তারা দাবী করেন।
এ বিষয়ে রেঞ্জ কর্মকর্তা ছৈয়দ আবু জাকারিয়ার কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, খুটাখালী ষ্টেশনের বাসিন্দা প্রভাবশালী বন জায়গীরদার আমির সোলতান ও ডাক্তার জহির সহ ৭/৮ জন লোক সিন্ডিকেট করে ছড়াখালে বাঁধ নির্মান করছে। তাদের বিরোদ্ধে বন আইনে পিওআর মামলা দেয়া হয়েছে। প্রভাবশালী হওয়ার কারণে বন্ধ রাখা যাচ্ছে না।
স্থানীয় বন জায়গিদার জয়নাল বলেন, এই ছড়া খালের কারণে নিম্ন এলাকায় প্রায় শতএকর জমিতে মৌসুমী চাষসহ ধান চাষ হয়ে থাকে। এ বাঁধের করণে এ বছর থেকে জমি গুলোর চাষাবাদ বন্ধ হয়ে যাবে। বাঁধটি কেনে না দিলে বড় ধরণের ক্ষতি হওয়ার আশংকা রয়েছে।
এলাকাবাসী আরো দাবী করেছে, ছড়াখালটি বন্ধ করা হলে ছড়ার উপরে ঘরবাড়ীতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে। অপরদিকে নিম্নাঞ্চলের কৃষকদের প্রায় হাজারো হেক্টর জমিতে কৃষি চাষে পানি শূন্যতা বিরাজ করবে। এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন স্থানীয় লোকজন। ##
খুটাখালী ফান্ডাছড়ি ছড়াখালে অবৈধ বেড়িঁবাধ :
মাছচাষ ও বালু উত্তোলন চাষাবাদের ক্ষতি
নিজস্ব প্রতিনিধি, চকরিয়া :
কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের ফুলছড়ি রেঞ্জের অধীন, চকরিয়া উপজেলাস্থ খুটাখালী ও ফুলছড়ি বনবিটের সীমানার মধ্যকার স্থানের উপর দিয়ে আসা প্রবাহমান খুটাখালী ফান্ডা ছড়ি ছড়াখালে বাঁধ নির্মান চলছে। এই বাধঁ দিয়ে মৌসুমি মৎস্য চাষ ও বালু উত্তোলনের কারণে নিম্নে এলাকার হাজার একর জমির চাষাবাদের ব্যাপক ক্ষতির আশংকা করছে স্থানীয় লোকজন।
স্থানীয় লোকজন অভিযোগ করছে, স্থানীয় কিছু ব্যক্তি সরকার দলের লোক ও বনজায়গীরদার পরিচয়ে ছড়া খালে বাঁধ নির্মাণ করছে। এসব কাজে খুটাখালী বনবিট কর্মকর্তা রেজাউল করিম ও ফুলছড়ি বনবিট কর্মকর্তা আকরাম ও রেঞ্জ কর্মকর্তা ছৈয়দ আবু জাকরিয়া প্রত্যক্ষ সহযোগিতা রয়েছে বলে তারা দাবী করেন।
এ বিষয়ে রেঞ্জ কর্মকর্তা ছৈয়দ আবু জাকারিয়ার কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, খুটাখালী ষ্টেশনের বাসিন্দা প্রভাবশালী বন জায়গীরদার আমির সোলতান ও ডাক্তার জহির সহ ৭/৮ জন লোক সিন্ডিকেট করে ছড়াখালে বাঁধ নির্মান করছে। তাদের বিরোদ্ধে বন আইনে পিওআর মামলা দেয়া হয়েছে। প্রভাবশালী হওয়ার কারণে বন্ধ রাখা যাচ্ছে না।
স্থানীয় বন জায়গিদার জয়নাল বলেন, এই ছড়া খালের কারণে নিম্ন এলাকায় প্রায় শতএকর জমিতে মৌসুমী চাষসহ ধান চাষ হয়ে থাকে। এ বাঁধের করণে এ বছর থেকে জমি গুলোর চাষাবাদ বন্ধ হয়ে যাবে। বাঁধটি কেনে না দিলে বড় ধরণের ক্ষতি হওয়ার আশংকা রয়েছে।
এলাকাবাসী আরো দাবী করেছে, ছড়াখালটি বন্ধ করা হলে ছড়ার উপরে ঘরবাড়ীতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে। অপরদিকে নিম্নাঞ্চলের কৃষকদের প্রায় হাজারো হেক্টর জমিতে কৃষি চাষে পানি শূন্যতা বিরাজ করবে। এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন স্থানীয় লোকজন। ##

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT