কোভিড-১৯ চিকিৎসায় নতুন এসএআরআই আইটিসি চালু করল আইওএম

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, জুন ২৮, ২০২০
  • 181 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

আব্দুল্লাহ মনির, টেকনাফ
কোভিড-১৯ স্বাস্থ্য সংকটের শুরু থেকেই কক্সবাজারে মানবিক সহায়তা কাজে নিয়োজিত সংস্থাগুলো বিশ্বের সবচেয়ে বড় শরণার্থী শিবিরকে আশ্রয় দেওয়া এই জেলাটিতে সম্ভাব্য মহামারী মোকাবেলায় সম্ভাব্য প্রস্তুতির জন্য কাজ করছে। মানবিক সহায়তায় স্বাস্থ্যসেবার নতুন নতুন প্রয়াসের মধ্যে রয়েছে পর্যাপ্ত সরঞ্জামাদি এবং কোভিড-১৯ আক্রান্তদের জন্য যথাযথ স্বাস্থ্যব্যবস্থা সম্বলিত নতুন নতুন সিভিয়ার একিউট রেস্পিরেটরি ইনফেকশন (এসএআরআই-গুরুতর তীব্র শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ) আইসোলেশন অ্যান্ড ট্রিটমেন্ট সেন্টার (আইটিসি) নির্মাণ। এছাড়া চলমান স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলো নির্মাণ এবং পুনর্নির্মাণ করার কাজও চলছে।
চলতি সপ্তাহে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কার্যালয়ের সাথে সমন্বয় করে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম-জাতিসংঘের অভিবাসন বিষয়ক সংস্থা) দুইটি এসএআরআই আইটিসি নির্মাণ করেছে যার মাধ্যমে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলার স্থানীয় জনগোষ্ঠী এবং রোহিঙ্গা শরণার্থীদের স্বাস্থ্যসেবা দেওয়া হবে।
টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্প ২৪ (লেদা) এবং উখিয়ার ক্যাম্প ২ (ডব্লিউ)-তে নির্মিত এই দুইটি বিশেষায়িত কোভিড-১৯ স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোতে বর্তমানে ৪৭টি এসএআরআই আইটিসি শয্যা রয়েছে। জুলাই মাসের মধ্যেই স্বাস্থ্যসেবাসহ শয্যা সংখ্যা ১১০-এ উন্নীত করা হবে। এই দুইটি কোভিড-১৯ স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোর মাধ্যমে জেলায় আইওএম-এর সামগ্রিক স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রমে ভূমিকা রাখবে। এছাড়া শীঘ্রই উখিয়ার কুতুপালংয়ে ক্যাম্প ২০ (এক্সটেনশন)-এ আরো একটি ১২০-শয্যার এসএআরআই আইটিসির নির্মাণ কাজ শেষ হবে। আইওএম কক্সবাজারের ইমার্জেন্সি হেলথ প্রোগ্রামের ডাঃ সমীর হাওলাদার বলেনঃ “উদ্বোধনকৃত এই ৪৭টি এসএআরআই আইটিসি শয্যা সুবিধাটি বাংলাদেশ সরকার এবং স্বাস্থ্য সেক্টরের পরিকল্পনাকৃত ২৫০-শয্যা বিশিষ্ট এসএআরআই আইটিসি-এর বৃহত্তর প্রচেষ্টার একটি সামান্য দৃশ্যমান অংশ। আইটিসি-এর পাশাপাশি আইওএম জনগোষ্ঠীগুলোর মধ্যে কন্টাক্ট ট্রেসিং (যোগাযোগের সন্ধান), হোম-বেইজ কেয়ার রেফারেল (বাড়িতে গিয়ে স্বাস্থ্যসেবার রেফারেল) এবং জরুরী মুহুর্তের যোগাযোগসহ বিভিন্ন সেবার মাধ্যমে অবদান রাখছে। আমরা বিশ্বাস করি একসাথে আমরা কোভিড-১৯ মোকাবেলা করার, জনগোষ্ঠীদের মধ্যে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা কমিয়ে এবং মৃত্যুহার রোধ করার চেষ্টা করলেই আমরা বাঁচব।“

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT