শিরোনাম :
রামু উপজেলা পরিষদের সৌন্দর্য্য নষ্ট করে দোকান বরাদ্ধের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ ঈদগাঁও বটতলী-ইসলামপুর বাজার সড়কের বেহাল দশা আইসক্রিম বিক্রেতা থেকে কোটিপতি রোহিঙ্গা জালাল : নেপথ্যে ইয়াবা ব্যবসা পৌর কাউন্সিলার জামশেদের স্ত্রী‘র ইন্তেকাল : সকাল ১০ টায় জানাযা উখিয়ায় বিদ্যুৎ পৃষ্টে একজনের মৃত্যু কক্সবাজারে বেড়াতে এসে অতিরিক্ত মদপানে চট্টগ্রাম ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু টেকনাফে নৌকা বিদ্রোহীদের জন্য কঠিন শাস্তি অপেক্ষা করছে; সাবরাং পথসভায় মেয়র মুজিব ৮ হাজার পিস ইয়াবা, যৌন উত্তেজক সিরাপ নগদ টাকা সহ আটক ১ মহেশখালী পৌর বিএনপির সভাপতি বহিস্কার,কমিটি বাতিল করোনা:ছয় মাস পর দৈনিক শনাক্ত ৬ শতাংশের কম

ঈদগাঁওতে ফায়ার সার্ভিস স্থাপনের দাবী

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০
  • 133 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

এম আবু হেনা সাগর,ঈদগাঁও
কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও বাজারে দমকল বাহিনী স্থাপন দাবী জানিয়েছে এলাকাবাসী। ৩৩ কিলোমিটার দূরবর্তী পর্যটন শহর কক্সবাজার কিংবা চকরিয়া থেকে দমকল বাহিনী আসার আগেই অগ্নিকান্ড কবলিত স্থান পুড়ে ছারখার হয়ে যাবে সবকিছু। এসব বিবেচনায় ফায়ার সার্ভিস স্থাপন আহবান সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট। অগ্নিকান্ডের ভয়াবহ থাবায় লাখ লাখ টাকার সম্পদ পুড়ে মাটি হয়ে যাচ্ছে প্রায় সময়। পোকখালী,জালালাবাদ,ইসলামাবাদ, ইসলামপুর ও ঈদগাঁওর প্রত্যান্ত গ্রামাঞ্চলে বসতবাড়ী,দোকানপাঠ সহ অন্যান্য জিনিসপত্র অগ্নিকান্ডে ধংস হচ্ছে। ফায়ার সার্ভিস বাস্তবায়নে জন্য দীর্ঘকাল ধরে বৃহৎ জনগোষ্টি আন্দোলন সংগ্রাম করেও আজ অবধি পর্যন্ত কোন কিছু হয়নি। ঈদগাঁওবাসীর স্বপ্ন যেন স্বপ্নই থেকে গেল। সেই দাবী বাস্তবায়নে সাংবাদিক ও লেখকরা তাদের লেখনিতে জাগ্রত রেখেছে এখনো। কিন্তু দীর্ঘবছরও কাজের কাজ কিছু না হওয়ায় হতাশ এলাকাবাসী।এমনকি ঈদগাঁও বাজারসহ কোন এলাকায় অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটলেই দূরর্বতী থেকে ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনা কখনো সম্ভব নয়। ঐখান থেকে দমকল এসে আগুন নিভানোর পূর্বেই সবকিছু পুড়েই মাটি হয়ে যায়। বিগত বহু বছরের ব্যবধানে অসংখ্য দরিদ্র পরিবার অগ্নিকান্ডে সবকিছু হারিয়ে নিঃস্ব হয়েছেন। গুরুত্বপূর্ণ বানিজ্যিক এলাকা ঈদগাঁওতে ব্যাংক বীমা ও ব্যবসায়ীক লেনদেনসহ দোকানপাঠ, ঘরবাড়ী এবং জনবসতি বেশী বলে জানা গেলেও অদ্যবধি পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিস স্থাপনে আলোর মুখ দেখেনি।একটি ফায়ার সার্ভিস স্টেশন স্থাপন জরুরী বলে মনে করেছেন সামাজিক ও রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দরা। বিভিন্ন সময়ে অগ্নি কান্ডের শিকার কজনের সাথে কথা হলে তারা হতাশ কন্ঠে জানান, বৃহত্তর ঈদগাঁওর বিভিন্ন এলাকায় পূর্বে অগ্নিকান্ডের মত দূর্ঘটনায় শিকার হয়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল। সবকিছু হারিয়ে নি:স্ব হয়ে আমরা এখনো মাথা উঁচু করে দাড়াঁতে পারিনি। দূর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেতে অবিলম্বে ঈদগাঁওতে ফায়ার সার্ভিস একান্ত দরকার। দমকল বাহিনী স্থাপন হলে ঈদগাঁওবাসী নতুন করে আশার আলো খুঁজে পাবে। ঈদগাহ পথশিশু ব্লাড এসোসিয়েশনের এডমিন ইমরান তৌহিদ রানা জানান, বৃহৎ এলাকার জনগোষ্টির কথা বিবেচনা করেই ফায়ার সার্ভিস স্থাপনের দাবীদার এলাকাবাসী। ঈদগাঁও প্রতিবন্ধি সংস্থার সভাপতি শামশুল আলম জানান, ঈদগাঁও তে একটি দমকল বাহিনী অতীব জরুরী। অগ্নিদূর্ঘটনা ঘটলেই কক্স বাজার বা চকরিয়া থেকে গাড়ী আসতেই সবকিছু পুড়ে ছারখার হয়ে যায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT