আমরা ঐক্যবদ্ধ, কক্সবাজার রাজনীতি আমুল পরিবর্তন হবে : রামুতে এমপি জাফর

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ১৪, ২০২১
  • 227 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

খালেদ শহীদ, রামু:
রামুর বঙ্গবন্ধু উৎসবে আলহাজ্ব জাফর আলম এমপি বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দিয়েছেন স্বাধীনতা। একটি দেশ, একটি পতাকা, একটি জাতীয় সংগীত। পৃথীবির বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার সাহস। কন্যা দিয়েছেন, আরেকটি বাংলাদেশের সমান সাগর বিজয়। পিতার রেখে যাওয়া মামলা পরিচালানা করে, তিনি সাগর বিজয়ী হলেন। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনে তিনি আকাশ জয় করলেন। বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাদের নেত্রী। শেখ হাসিনা বাঁচলে, বাংলাদেশ বাঁচবে। শেখ হাসিনা এগিয়ে গেলে, বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। শেখ হাসিনা জিতলে, জিতবে মুক্তিযোদ্ধারা, রিক্সাওয়ালা গরিব ভাইয়েরা। বুধবার (১৩ জানুয়ারি) রাতে রামু স্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধু উৎসবের তৃতীয় দিনের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় চকরিয়া-পেকুয়া আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব জাফর আলম একথা বলেন। বঙ্গবন্ধু জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন পরিষদ, রামুর আয়োজনে অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু উৎসবের তৃতীয় দিনের আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা মাষ্টার ফরিদ আহমদ।
প্রধান অতিথি আলহাজ্ব জাফর আলম এমপি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিগত দুইবার বাজেটে, কক্সবাজারকে ঘিরেই বরাদ্ধ দিয়েছেন সিংহভাগ বাজেট। কিন্তু পৃথিবীর দীর্ঘতম কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত অযত্ন অবহেলায় পড়ে আছে। কারণ সমুদ্র সৈকত দেখার মতো কক্সবাজারের কোন সূর্য সন্তান এই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে নেই। পর্যটকরা কক্সবাজারে এসে রাস্তাঘাটের অব্যবস্থাপনা দেখে, থকে যায়। আমি অনেক পর্যটকের কাছ থেকে শুনেছি, কক্সবাজার শহরে কোন শান্তি পাওয়া যায়না। একটু শান্তি পাওয়ার জন্য পর্যটকরা ঘুরতে আসেন রামুতে। আপনারা দেখুন রামু উপজেলার মানুষ অনেক সৌভাগ্যবান।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ‘তোমার জন্ম হয়েছে বলেই আমরা পেয়েছি বাংলাদেশ’ এ শ্লোগানে সোমবার থেকে সাত দিনব্যাপী ‘বঙ্গবন্ধু উৎসব’ শুরু হয়েছে। আলোচনা অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তৃতা করেন, ‘বঙ্গবন্ধু জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন পরিষদ, রামুর চেয়ারম্যান কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল।
আলোচনা সভায় আলহাজ্ব জাফর আলম এমপি বলেন, কক্সবাজারে মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হয়েছে। খেলাধুলার মান উন্নয়ন ও শিক্ষাসংস্কৃতি বিকাশের জন্য রামুতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বিকেএসপি ষ্টেডিয়াম। সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি হয়েছেন বলেই রামু-কক্সবাজারে এ গুলো প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তিনি বলেন, কক্সবাজার-রামু উপজেলার মানুষ বিগত কয়েক বছরে যা পেয়েছেন, বিগত শত বছরেও তা পায়নি। সুতরাং সকলকে দলীয় সংকৃর্ণতা ভুলে গিয়ে, ব্যক্তিগত রেষারেষি ভুলে গিয়ে সাইমুম সরওয়ার কমলের হাতকে শক্তিশালি করতে হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা মানবতার মা বিশ্বনেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকা উচিত। আমরা সকলে ঐক্যবদ্ধ হলে, কক্সবাজার রাজনীতিতে একটা আমুল পরিবর্তন হবে।
কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধু ভাষ্কর্যর উপর আঘাত হানাকে উল্লেখ করে প্রধান অতিথি জাফর আলম এমপি বলেন, কক্সবাজারে এই ধরণের স্পর্ধা জামাত-বিএনপিরা যদি দেখায়, তাদের আমরা নিষিদ্ধ ঘোষনা করবো। বাঙালীরা কখনও মাথা নত করবেনা।
‘বঙ্গবন্ধু জন্মশত বার্ষিকী উদযাপন পরিষদ, রামুর চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একশত বছর জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে রামুতে সাত দিনব্যাপী ‘বঙ্গবন্ধু উৎসব’ আয়োজন করা হয়েছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে অর্জিত বাংলাদেশে ইতিহাস বিকৃতি যেন না হয়, প্রজন্মের কাছে সঠিক ইতিহাস উপস্থাপনেই রামুর এই ‘বঙ্গবন্ধু উৎসব’।
আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি বলেন, আমরা স্বপ্ন দেখি কক্সবাজার বিশ্ববিদ্যালয়ের। আমরা একসাথে কাজ করে কক্সবাজার বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করবো ইনশাআল্লাহ। চকরিয়া-পেকুয়ার মানুষ যাতে সুবিধা পায়, আমার কক্সবাজার সদর ও রামুর মানুষ যাতে সুবিধা পায়, ঈদগাঁওর মানুষ যাতে সুবিধা পায়, আমাদের মধ্যবর্তী স্থানে কক্সবাজার বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করবো। তাই আজকে আমার কক্সবাজার জেলার উন্নয়নে, কক্সবাজারবাসীর উন্নয়নে আলহাজ্ব জাফর আলম এমপির সমর্থন আমাদের খুব বেশী দরকার। বঙ্গবন্ধু উৎসব কমিটির পক্ষ থেকে আলহাজ্ব জাফর আলম এমপি সহ সকল অতিথি নেতৃবৃন্দকে আমি অভিনন্দন জানাচ্ছি। এমপি কমল বলেন, কর্ণফুলীর নদীর তলদেশ দিয়ে ট্যানেল হয়েছে। সেই ট্যানেল সড়কটি আনোয়ারা পর্যন্ত এসেছে। আসবে কক্সবাজার পর্যন্ত। চকরিয়া থেকে কক্সবাজারের সড়কটি হয়ে গেলে, চট্টগ্রাম থেকে দুই ঘন্টায় কক্সবাজার চলে আসা যাবে। সেই সড়কটুকু করতে গেলে, আলহাজ্ব জাফর আলম এমপির সমর্থন প্রয়োজন আমাদের। জাফর আলম ভাই যদি সমর্থন না করেন, এই সড়কটুকু করা আমাদের পক্ষে করা সম্ভব নয়।
রামু উপজেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগ সাধারণ সম্পাদক তপন মল্লিকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত বুধবার রাতে অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু উৎসবের তৃতীয় দিনের আলোচনা সভায় বক্তৃতা করেন, কক্সবাজার পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আবছার, রামু কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল হক, কক্সবাজার জেলা ইমাম সমিতির সভাপতি মাওলানা কাজী সিরাজুল ইসলাম, ইঞ্জিনিয়ার বদিউল আলম, ঝিলংজা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কুদুরত উল্লাহ সিকদার, দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. ইউনুচ ভূট্টো, কক্সবাজার জেলা স্বেচ্ছা সেবকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রুস্তম আলী চৌধুরী, কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন, রামু উপজেলা যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন, রামু ছাত্রলীগ নেতা তছলিম উদ্দিন সোহেল প্রমুখ। অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা, আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী সহ উদযাপন পরিষদের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।
আলোচনা সভার পরে নাট্যকর্মী তাপস মল্লিকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কবিতা আবৃত্তি করেন, অভিপ্সা বড়ুয়া মেঘলা। একক সংগীত পরিবেশন করেন, মোহাম্মদ শাহেদ, সংগীত বড়ুয়া, নন্দীতা দেবী ইমা, কামাল উদ্দীন, পেঠান, মোবারক হোসেন, মেহজাবিন রোবাইয়াত ঈষিকা ও আঞ্চলিক গানের জনপ্রিয় শিল্পী মেরি। দলীয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেয়, কক্সবাজারের ‘সঙ্গীতায়ন’, রামুর ‘সমস্বর’ এবং নাটক ‘যৌতুকের বলি’ মঞ্চায়ন করে, রামুর ‘দূর্জয় গণ নাটক দল’। এ ছাড়াও রাতে বঙ্গবন্ধু উৎসব মঞ্চের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন, স্থানীয়শিল্পীরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT