শিরোনাম :
মাতারবাড়ি প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ হাসিনার জম্মদিন উপলক্ষ্যে ঈদগাঁওতে ১ হাজার ৫শ জনের মাঝে টিকা আইসক্রিম বিক্রেতা থেকে কোটিপতি রোহিঙ্গা জালাল : নেপথ্যে ইয়াবা ব্যবসা সিনহা হত্যা মামলার চতুর্থ দফা সাক্ষ্যগ্রহন শুরু উখিয়ার রোহিঙ্গা ছৈয়দ নুরের এনআইডি বাতিল করতে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ আদালতের নির্দেশ অমান্য করে কলাতলীতে হোটেল দখলে নিতে তৎপর প্রতারক চক্র অবাধ তথ্য প্রবাহ দূর্নীতি প্রতিরোধে সহায়ক ভুমিকা রাখতে পারে : সুজনের আলোচনা সভায় বক্তারা ফাঁদে ফেলে ব্ল্যাকমেইল করতেন বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই নারী শিক্ষক ২০ হাজার ইয়াবা সহ আটক ১ জেলার বিভিন্ন মসজিদ মাদ্রাসায় কর্মরত রোহিঙ্গাদের সরকারি সুযোগ সুবিধা বাতিলের দাবীতে আবেদন

আধিপত্য বিস্তার নিয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সংঘর্ষ : ২ রোহিঙ্গা নিহত

রির্পোটার:
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, অক্টোবর ৪, ২০২০
  • 209 বার সংবাদটি পড়া হয়েছে

মাহাবুবুর রহমান,
কক্সবাজারের উখিয়া কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই সন্ত্রাসী গ্রুপের মধ্যে ফের গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এতে নিহত হয়েছে দুই রোহিঙ্গা। আহত হয়েছে ১০ নারী পুরুষ। আজ রবিবার সকালে কুতুপালং ক্যাম্প ওয়েস্ট-২ ডি-৫ বøকে এ ঘটনা ঘটে।নিহত দুই রোহিঙ্গা হচ্ছে- কুতুপালং ক্যাম্প ২ ওয়েস্ট এর ডি ৫-ব্লকের মৃত সৈয়দ আলমের পুত্র ইমাম শরীফ (৩২) ও ডি-২ বøকের মৃত ইউনুসের পুত্র শামসুল আলম (৪৫)। এর দুইদিন আগেও কুতুপালং ক্যাম্পে সন্ত্রাসী রোহিঙ্গাদের গুলিতে এক মহিলা নিহত হয়। হতাহতের সত্যতা নিশ্চিত করে উখিয়া থানার ওসি আহাম্মদ সঞ্জুর মোরশেদ বলেছেন, ক্যাম্পের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ টহলে রয়েছে। তবে বারবার গোলাগুলি ও আহত-নিহতের ঘটনাকে কেন্দ্র করে ক্যাম্পে উত্তেজনা বিরাজ করছে। জড়িতদের গ্রেফতারে র‌্যাব, পুলিশ ও আর্মড ব্যাটালিয়ন সদস্যরা অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে।উল্লেখ্য, ক্যাম্প অভ্যন্তরে গণহারে চাঁদাবাজির ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই সন্ত্রাসী গ্রুপের মধ্যে প্রতিনিয়ত গোলাগুলির ঘটনা ঘটে চলেছে। ক্যাম্পে দোকানপাট-মার্কেট গড়ে তোলা, ইয়াবা স্বর্ণ চোরাচালানি কারবার নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে সন্ত্রাসী রোহিঙ্গা গ্রুপগুলো সর্বদা সক্রিয়। তারা এই অবৈধ ব্যবসা নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রেখে মোটা অঙ্কের চাঁদাবাজি হাতছাড়া করতে নারাজ। প্রতিমাসে ওইসব ক্যাম্প থেকে কয়েক কোটি টাকারও চাঁদা বাণিজ্য হয়ে থাকে। তাই রোহিঙ্গারা ওইসব দোকান ও ইয়াবা কারবারিদের কাছ থেকে প্রতিনিয়ত চাঁদা আদায় করে চলেছে। ২০১৭ সালে প্রায় ৮লাখ রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে কক্সবাজারে এসে আশ্রয় নেয়। আগে থেকে ৪ লাখ রোহিঙ্গা আশ্রয় নেয় বিভিন্ন সময়। সবমিলিয়ে ১২ লাখের বেশি রোহিঙ্গা রয়েছে বাংলাদেশ। তারা বর্তমানে নগদ টাকা কামাই করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। এ পর্যন্ত একজন রোহিঙ্গাও ফিরে যায়নি। বরং আশ্রিত রোহিঙ্গারা দিন দিন নানা অপরাধের সঙ্গে জড়িয়ে যাচ্ছে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এই বিষয়ে আরো সংবাদ দেখুন
© All rights reserved © 2021 cox71.com
Developed by WebArt IT